আসাম: গ্রেপ্তার বার্মিজ সুপারি পাচার চক্রের মাথা আলতাফ হোসেন

দীর্ঘ প্রচেষ্টার পর বার্মিজ সুপারি পাচার চক্রের মাথা আলতাফ হোসেনকে গ্রেপ্তার করলো পুলিশ। গত ৮ই ফেব্রুয়ারি করিমগঞ্জ থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

খবর অনুযায়ী, আলতাফ হোসেন প্রতিষ্ঠিত সুপারি ব্যাবসায়ী হিসেবে পরিচিত। তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল যে মায়ানমার থেকে সুপারি এনে কাছাড়, করিমগঞ্জ সমেত আশেপাশের জেলাতে বিক্রি করতেন। মায়ানমারের সুপারি কম দামী হওয়ায় স্থানীয় সুপারি চাষী এবং ব্যবসায়ীরা ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছিলেন। এ নিয়ে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা একাধিকবার বিক্ষোভে সামিল হয়েছিলেন। রাস্তায় সুপারি ফেলে বিক্ষোভ দেখিয়েছিলেন তাঁরা।

তারপরই সুপারি পাচার চক্র খতম করতে উঠেপড়ে লাগে কাছাড় পুলিশ। পুলিশ সুপার নুমাল মহত্ত-র নেতৃত্বে তৈরি হয় পুলিশের একটি টিম। তদন্তে উঠে আসে আলতাফ হোসেনের নাম। তারপরই তাকে গ্রেপ্তার করতে অভিযান চালায় পুলিশ।

পুলিশ জানতে পারে যে ব্যবসায়িক প্রয়োজনে বাংলাদেশে গিয়েছেন আলতাফ। ৮ই ফেব্রুয়ারি ফিরবেন। সেই মতো বাংলাদেশ থেকে ফেরার সময় করিমগঞ্জ থেকে আলতাফ হোসেনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

প্রসঙ্গত, কাছাড় ও করিমগঞ্জ সমেত একাধিক জেলার বাজারে মায়ানমারের সুপারির দাপট নতুন নয়। আসামে সুপারির দাম বেশি হওয়ায় তুলনায় কম দামী মায়ানমারের সুপারি এনে মিশিয়ে বিক্রি করা হতো। ফলে স্থানীয় উৎপাদিত সুপারির বাজার মিলছিল না। স্থানীয় সুপারি চাষী এবং ব্যাবসায়ীরা ক্ষতির মুখে পড়েছিলেন। তাই সুপারি পাচার বন্ধের জন্য পুলিশ ও প্রশাসন ব্যবস্থা নিক, এমন দাবি দীর্ঘদিন ধরেই জানিয়ে আসছিলেন তাঁরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Sorry! Content is protected !!