পাঞ্জাব: কংগ্রেসের মদতেই খ্রিস্টান মিশনারিদের বাড়বাড়ন্ত, ‛হিলিং’ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি মুখ্যমন্ত্রী

0
20

খ্রিস্টান মিশনারিদের প্রভাব ক্রমশঃ বেড়ে চলেছে পাঞ্জাবে। রাজ্যের শহর ও গ্রামে বাড়ছে চার্চের সংখ্যা। রোগ সারানোর নামে অশিক্ষিত, শিক্ষিত, মূর্খ, বোকা সবাইকেই খ্রিস্টান ধর্মে ধর্মান্তরিত করা হচ্ছে। পরিস্থিতি এমন যে পাগড়ি পরা খ্রিষ্টানের সংখ্যা বাড়ছে পাঞ্জাবে।

শিখ সংগঠনগুলির অভিযোগ, কংগ্রেসের মদতেই এমন কান্ড চলছে রাজ্য। তাদের বরাবরের অভিযোগ ছিল যে পাঞ্জাব কংগ্রেসের কয়েকজন শীর্ষ নেতা সরাসরি খ্রিস্টান মিশনারিদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে কাজ করছেন। এবার সেই অভিযোগের পক্ষে তাঁর তাজা প্রমাণ সামনে এলো।

পাঞ্জাবের নাম করা খ্রিস্টান মিশনারী হলেন প্যাস্টর বাজিন্দর সিং। জোর করে কিংবা ভুল বুঝিয়ে খ্রিস্টান ধর্মে ধর্মান্তরিত করার একাধিক অভিযোগ উঠলেও বারবার কোনও এক অজ্ঞাত কারণে ছাড়া পেয়ে যান তিনি। ফলত, নতুন উদ্যমে শিখদের ধর্মান্তরিত করার কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। আর তাঁর হাতিয়ার ‛হিলিং প্রোগ্রাম’ অর্থাৎ যীশুর নাম নিয়ে রোগ সেরে যাওয়া।

ছবি: অনুষ্ঠানের আমন্ত্রণ পত্র

এমনই সক অনুষ্ঠানের আমন্ত্রণ পত্র সামনে এসেছে। শ্রী আমন্ত্রণ পত্রের ওপরে লেখা রয়েছে ‛Healing Crusade in Moga’। পাশে রয়েছে খ্রিস্টান মিশনারী বাজিন্দর সিং-এর ছবি। প্রধান অতিথি হিসেবে নাম রয়েছে পাঞ্জাবের কংগ্রেস সরকারের মুখ্যমন্ত্রী চরণজিত সিং। এছাড়াও, বলিউড অভিনেতা সোনু সুদ ও তাঁর বোন মালবিকা সুদ। পাশাপাশি, স্থানীয় কংগ্রেস বিধায়কও অতিথি তালিকায় রয়েছেন। অনুষ্ঠান হওয়ার কথা ২৫শে নভেম্বর।

আর এই অনুষ্ঠানে কংগ্রেসি মুখ্যমন্ত্রীর যাওয়ার খবরে ব্যাপক ক্ষোভ ছড়িয়েছে পাঞ্জাবের ধর্মপ্রাণ শিখদের মধ্যে। গুরুদ্বারা প্রবন্ধক কমিটি এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করুক, দাবি তুলছেন অনেকে। তবে আশ্চর্যজনকভাবে শিখদের ধর্মের ইস্যু তুলে রাজনীতি করা আকালী দলও এই বিষয়ে নীরব।

We are not big media organisation. Your support is what keeps us moving. Don't hesitate to contribute because, work, for society needs society's support. Jai Hind.