কোচবিহার: বিয়ে করার চাপ মুসলিম যুবকের, সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যা হিন্দু নাবালিকার

0
58

আমাকেই বিয়ে করতে হবে- এক মুসলিম যুবকের লাগাতার হুমকি ও চাপ সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যা করলেন এক হিন্দু নাবালিকা, এমনটাই অভিযোগ। ঘটনা কোচবিহার জেলার মাথাভাঙ্গা-২ ব্লকের অন্তর্গত ঊনিশবিশা গ্রামের।

জানা গিয়েছে, আত্মহত্যা করা ওই হিন্দু নাবালিকার নাম সোনালী বর্মণ। কালী পূজার দিন ওই নাবালিকাকে তাঁর বাড়িতে ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া যায়। খবর ছড়িয়ে পড়তেই গ্রামের বাসিন্দারা ভিড় করেন ওই নাবালিকার বাড়িতে।

ওই নাবালিকার মায়ের অভিযোগ, ঘোকসাডাঙ্গা স্টেশন বাজারের কাছের বাসিন্দা মুসলিম যুবক রাহুল ইসলাম দীর্ঘদিন ধরেই মেয়েকে উত্যক্ত করতো। এমনকি তাকে বিয়ে করতে হবে, ফোন করে এমন চাপ দেওয়া হচ্ছিল তাদের। শুধু তাই নয়, রাহুল ইসলামের থেকে মেয়েকে বাঁচাতে মেয়েকে তাড়াতাড়ি বিয়ে দেওয়ারও চেষ্টা করেছিলেন তাঁরা। কিন্তু সেখানেও বাধা দেয় রাহুল ইসলাম, এমনটাই তাঁর অভিযোগ।

মৃতা নাবালিকার মায়ের অভিযোগ, এর আগে একবার একটি ছেলের সঙ্গে মেয়ের বিয়ে ঠিক হয়েছিল। কিন্তু সেই বিয়ে ভেঙে দেয় ওই যুবক। পরে আর একটি ছেলের সঙ্গে বিয়ে ঠিক হয়েছিল। সেই ছেলের সঙ্গে কালী পূজার দিন ঘুরতে যাওয়ার কথা ছিল মেয়ের। কিন্তু রাহুল ও তাঁর এক বান্ধবী ফোন করে নানারকম কথা বলে এবং বিয়ে না করতে চাপ দেয়। তা জানতে পেরেই আত্মহত্যা করে মেয়ে। ফোন কলের সমস্ত রেকর্ডিং তাদের কাছে রয়েছে বলে দাবি ওই নাবালিকার মায়ের।

মৃতা নাবালিকার পিতা উত্তম বর্মণ বলেন, দীর্ঘদিন ধরেই আমার মেয়েকে বিয়ের জন্য চাপ দিতো রাহুল ইসলাম। আমাকেও বলেছিল। আমি বলেছিলাম তা সম্ভব নয়। তারপরেও মেয়েকে ফোন করে বিয়ের জন্য চাপ দিতো। একাধিকবার মেয়ের বিয়ের সম্বন্ধও ভেঙে দিয়েছে সে। ওই জন্যই আমার মেয়ে আত্মহত্যা করেছে। আমরা পুলিশে অভিযোগ দায়ের করবো। আমি চাই, ওই যুবকের কঠিন শাস্তি হোক।

We are not big media organisation. Your support is what keeps us moving. Don't hesitate to contribute because, work, for society needs society's support. Jai Hind.