গুয়াহাটি: ১৩ বস্তা জিলেটিন স্টিক ও ডিটানেটর সমেত গ্রেপ্তার রহিম বাদশা, আইনুল আলী ও আসাদুল ইসলাম

0
98

ধলপুরে বাংলাদেশি মুসলিম অনুপ্রবেশকারীদের উচ্ছেদ নিয়ে যখন রাজ্যের পরিস্থিতি উত্তপ্ত, ঠিক তখনই গুয়াহাটিতে বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক ও ডিটানেটর সমেত তিন ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করার ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে আসাম জুড়ে। ধৃতরা হলো রহিম বাদশা, আইনুল আলী এবং আসাদুল ইসলাম।

জানা গিয়েছে, জানা গিয়েছে প্রতিদিনের মতই বৃহস্পতিবার রাতে গুয়াহাটি শহরের আইএসবিটি মোড়ে ডিউটি করছিলেন পুলিশকর্মীরা। সেই সময় একটি বোলেরো পিক-আপ ভ্যান আটকায় পুলিশ। সন্দেহের বশে ভিতরে তল্লাশি চালাতেই চক্ষু চড়কগাছ পুলিশের। গাড়ির ভিতরে ১৩টি বস্তায় ঠাসা ছিল জিলেটিন স্টিক ও ডিটানেটর। সঙ্গে গাড়িটি আটক করে গড়চুক থানায় নিয়ে আসে পুলিশ। উদ্ধার হওয়া বিস্ফোরকের মূল্য ১৫ কোটি টাকার বেশি, বলছেন বিশেষজ্ঞরা।

তারপরই উচ্চপদস্থ পুলিশ আধিকারিকরা থানায় ছুটে আসেন। ধৃতদের জেরা করে পুলিশ জানতে পারে যে দুর্গা পূজার সময়ে আসামের বিভিন্ন প্রান্তে বিস্ফোরণের ছক কষা হয়েছিল। সেই উদ্দেশ্যেই মেঘালয় থেকে এই বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক আনা হচ্ছিল। তাঁরা জেরায় আরও জানায় যে কাদেম আলী এই পুরো পরিকল্পনার মূল মাথা।

জেরায় পুলিশ জানতে পেরেছে যে ধৃত ৩ জনের মধ্যে ২ জন গোয়ালপাড়ার বাসিন্দা। আর একজন গুয়াহাটির রানী এলাকার বাসিন্দা। ধৃতরা মেঘালয় থেকে বিস্ফোরক নিয়ে এসে অন্য কোনও জিহাদি ঘাঁটিতে নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করছিল বলে পুলিশের অনুমান। তবে তদন্তের স্বার্থে পুলিশ বেশি কিছু জানাতে চায়নি। তবে এই বিস্ফোরক উদ্ধারের ফলে ভয়াবহ হামলার হাত থেকে যে আসাম রক্ষা পেল, তা এক বাক্যে স্বীকার করছেন সকলে।

We are not big media organisation. Your support is what keeps us moving. Don't hesitate to contribute because, work, for society needs society's support. Jai Hind.