ইসলামিক স্টেটে(ISIS) যোগ দেওয়া কন্যা আয়েশাকে দেশে ফেরাতে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ পিতা

0
86

মেয়ে ইসলামে ধর্মান্তরিত হওয়ার পরে ইসলামিক স্টেটে যোগ দিতে আফগানিস্তানে পাড়ি দিয়েছিল। কিন্তু ধরা পড়ার পর নিজের কন্যা সন্তান সমেত আফগানিস্তানের জেলে ঠাঁই হয়েছে আয়েশার। এবার তাকে ফিরিয়ে আনতে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হলেন তাঁর পিতা

উল্লেখ্য, ইসলামিক স্টেটে যোগ দিতে আফগানিস্তান ও সিরিয়ায় পাড়ি দিয়েছিলেন কেরালার বেশ কয়েকজন যুবক-যুবতী। অনেকের মৃত্যু হলেও বেশ কয়েকজন মুসলিম মহিলা এখন আফগানিস্তানের জেলে বন্দি। কিন্তু দেশে ফেরালে নিরাপত্তা বিপদে পড়তে পারে, তাই তাদেরকে ভারতে ফিরিয়ে আনা হবে না বলেই জানিয়েছিল কেন্দ্র সরকার। কিন্তু আয়েশার পিতা কেন্দ্রকে চ্যালেঞ্জ জানিয়েই সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হলেন।

সুপ্রিম কোর্টে দায়ের করা মামলায় আয়েশার পিতার দাবি, বিশ্বের অনেক দেশ ইসলামিক স্টেটে যোগ দিতে যাওয়া মহিলাদের নিজের দেশে ফিরিয়ে এনেছে। এক্ষেত্রে তাদের বক্তব্য এই যে মহিলারা তাদের স্বামীর সঙ্গেই ছিলেন। লড়াইয়ে তাদের সরাসরি কোনও ভূমিকা ছিল না। তাই তাদের দেশে ফিরিয়ে আনলে জাতীয় নিরাপত্তা ও সুরক্ষা বিপদের মুখে পড়বে না।

তাঁর আরও দাবি এই যে বিষয়টি অত্যন্ত জরুরি। কারণ আমেরিকান সেনার চলে যাওয়ার পর আফগানিস্তানের পরিস্থিতির দ্রুত পরিবর্তন হচ্ছে। কিন্তু তাঁর কন্যা ও নাতনিকে দেশে না ফেরানোর যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্র, তা বেআইনি ও অসাংবিধানিক বলে তাঁর দাবি। এই সিদ্ধান্ত সংবিধানের মৌলিক অধিকারের বিরুদ্ধে বলে তাঁর অভিযোগ। তাই সুপ্রিম কোর্ট যেন তাঁর কন্যা ও নাতনিকে দেশে ফেরাতে প্রয়োজনীয় নির্দেশ দেয় কেন্দ্র সরকারকে, সেই দাবি জানিয়েছেন সেবাস্তিয়ান।

কেরালার বাসিন্দা ভিজে সেবাস্তিয়ান। তাঁর কন্যা সোনিয়া সেবাস্তিয়ান রশিদ নামে এক মুসলিম যুবকের প্রেমে পড়ে এবং ইসলামে ধর্মান্তরিত হয়। তাঁর নাম হয় আয়েশা। তারপর জিহাদে যোগ দিতে স্বামীর সঙ্গে আফগানিস্তানে পাড়ি দেয় সে। পরে স্বামীর মৃত্যু হলে আফগানিস্তানের জেলে ঠাঁই হয় তাঁর। ইতিমধ্যে এক কন্যা সন্তানের জন্ম দেয় সে। এবার তাকে ফেরাতেই সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হলেন তাঁর পিতা।

Image credits: OpIndia

We are not big media organisation. Your support is what keeps us moving. Don't hesitate to contribute because, work, for society needs society's support. Jai Hind.