‛গাজওয়াতুল হিন্দ’ বা হিন্দুস্থানের বিরুদ্ধে অন্তিম যুদ্ধের লক্ষ্যেই ঐক্যবদ্ধ হচ্ছে ভারত ও বাংলাদেশের জিহাদিরা

0
205

© নুরুজ্জামাণ লাবু

‛গাজওয়াতুল হিন্দ’ বা ‘হিন্দুস্থানের বিরুদ্ধে যুদ্ধ’কে সামনে রেখে সংগঠিত হচ্ছে বাংলাদেশ ও ভারতের জঙ্গিরা। বাংলাদেশে নিষিদ্ধ ঘোষিত দুই জঙ্গি সংগঠন জামাতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশ-জেএমবি, আনসার আল ইসলাম ও ভারতের জামআতুল মুজাহিদীন ইন্ডিয়া-জেএমআই একজোট হয়ে এই অপতৎপরতা শুরু করেছে। সম্প্রতি পশ্চিমবঙ্গে গ্রেফতার হওয়া চার জঙ্গির কাছ থেকে এ তথ্য পেয়েছে ভারতের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী।

জঙ্গিবাদ দমনে তথ্য বিনিময়ের মাধ্যমে এ অপতৎপরতা বন্ধে একসঙ্গে কাজ করছে বাংলাদেশ-ভারত গোয়েন্দারা। ঢাকার কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিট- সিটিটিসির দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতেই পশ্চিমবঙ্গের ওই চার জঙ্গিকে গ্রেফতার করেছিল কলকাতার স্পেশাল টাস্ক ফোর্স-এসটিএফ।

ঢাকার পুলিশ কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, ‘সম্প্রতি ভারতে বড় মাপের তিন জঙ্গি গ্রেফতার হয়েছে। তাদের সম্পর্কে আমাদের কাছে তথ্য ছিল। এ ধরনের তথ্য আমরা আদান-প্রদান করে থাকি। ওই তিনজন জিহাদের জন্য বাংলাদেশ ত্যাগ করেছে। তথ্যটা আমরা জানতাম, যা যথাযথ সময়েই ভারতকে জানিয়েছিলাম।’

সম্প্রতি জঙ্গি তৎপরতা বৃদ্ধি ও জঙ্গিদের সক্ষমতা বেড়েছে জানিয়ে ঢাকার শীর্ষ এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘আমরাও কিন্তু বসে নেই। জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে আমাদের যারা কাজ করছে তারা খুব এক্সপার্ট। ঘটনা ঘটার আগেই আমরা তথ্য পাচ্ছি। যেখানে যতটুকু পাচ্ছি, সেখানেই কাজ করছি।’

যেভাবে সংগঠিত হচ্ছে জঙ্গিরা
গতবছরের শেষ দিকে রাজধানী ঢাকার মগবাজার, ইস্কাটন ও রাজাবাজার এলাকায় কয়েকটি সিরিয়াল ডাকাতির ঘটনা তদন্ত করতে গিয়ে জঙ্গি সম্পৃক্ততা পেয়েছিল মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। এসময় বেশ কয়েকজন জঙ্গিকে গ্রেফতার করা হয়। উদ্ধার করা হয় শীর্ষ এক জঙ্গি নেতার মোবাইল ফোন। সেই মোবাইল ফোন থেকেই ‘গাজওয়াতুল হিন্দ’-এর জন্য বিভিন্ন জঙ্গি সংগঠনের একজোট হয়ে কাজ করা সম্পর্কিত কিছু নথি উদ্ধার হয়। সেসব কাগজপত্রে কীভাবে একজোট হয়ে কাজ করা হবে তা নিয়ে কয়েক পাতার একটি নির্দেশিকা ছিল।

মোবাইল ফোনটি যে শীর্ষ জঙ্গি ব্যবহার করতেন, তার নাম আনোয়ারুল ইসলাম হৃদয়। যাকে ‘হিন্দ অঞ্চল’-এর সামরিক শাখার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। পলাতক এই শীর্ষ জঙ্গির সঙ্গে একদিকে যেমন বাংলাদেশের বিভিন্ন কারাগারে থাকা জঙ্গিদের নিয়মিত যোগাযোগ ছিল, তেমনি তিনি মাঝে-মধ্যেই সীমান্ত পেরিয়ে নিয়মিত ভারতে যাতায়াত করতেন। ভারতের স্পর্শকাতর অঞ্চল হিসেবে বিবেচিত কাশ্মীরে গিয়ে জঙ্গিবাদের সামরিক প্রশিক্ষণও নিয়েছেন তিনি।

পশ্চিমবঙ্গে গ্রেফতার হওয়া জঙ্গিদের বরাত দিয়ে এসটিএফ বলেছে, বারাসাত থেকে লালু সেন বা রাহুল নামে যাকে তারা গ্রেফতার করেছে, গ্রেফতারের আগে তার বাসায় এই হৃদয় অবস্থান করেছিল। রাহুলের বাসা থেকে এসটিএফ হৃদয়ের ব্যবহার করা কয়েকটি ইলেকট্রনিক ডিভাইসও উদ্ধার করেছে। রাহুল অর্থের বিনিময়ে জঙ্গিদের অস্ত্র-বিস্ফোরক সরবরাহ এবং ভারতে সংগঠিত হতে সহযোগিতা করতো। ঢাকার গোয়েন্দা পুলিশের একটি মামলার এজাহারভুক্ত আসামি হিসেবে ভারতে গ্রেফতার হওয়া রাহুল ও পাভেল ওরফে জোফের নামও রয়েছে।

পশ্চিমবঙ্গে গ্রেফতার হওয়া রাহুলও অবৈধভাবে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে নিয়মিত বাংলাদেশে যাতায়াত করতেন। বাংলাদেশের কাকলী মৃধা নামে একজন আইনজীবীকে তিনি বিয়েও করেছেন বলে ঢাকার সিটিটিসির একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন। তবে যোগাযোগ করা হলে বিয়ের কথা অস্বীকার করে কাকলী মৃধা জানান, সাবেক স্বামী শংকর দত্তের সুবাদে রাহুলের সঙ্গে তার পরিচয় ছিল। ২০১৫-১৬ সালে রাহুল তাদের বাড়িতেও এসেছে। রাহুলের সঙ্গে তার সম্পর্কের একটি গুজব উঠেছিল, কিন্তু তারা বিয়ে করেননি।

ভারতে গ্রেফতার হওয়া তিন জঙ্গির একজন নাজিউর রহমান ওরফে পাভেল ওরফে জোসেফ বাংলাদেশের আনসার আল ইসলামের শীর্ষ জঙ্গি আল-আমীনের বোন-জামাই। আল-আমীন কাশিমপুর কারাগারে বন্দি। জেলে থাকা আল-আমীনের সঙ্গে পলাতক শীর্ষ জঙ্গি হৃদয়ের অনেকগুলো কথপোকথনের রেকর্ড পেয়েছে ঢাকার গোয়েন্দা পুলিশ।

বিশেষ ব্যবস্থায় সম্প্রতি আল-আমীনের সঙ্গে কথা হয়েছে এই প্রতিবেদকের। আল-আমীন বলেছেন, তিনি আনসার আল ইসলামের সক্রিয় সদস্য। আগেও একবার আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে গ্রেফতার হয়ে কারাগারে গিয়েছিলেন।

জামিনে ছাড়া পাওয়ার পর খুলনার বাসিন্দা আল-আমীন গোপালগঞ্জে গিয়ে অবস্থান করেন। কয়েক মাস পর আবারও তাকে র‌্যাব গ্রেফতার করে। বাংলাদেশে জেএমবি, হরকাতুল জিহাদ ও আনসার আল-ইসলামের সঙ্গে একজোট হয়ে গাজওয়াতুল হিন্দের জন্য কাজ করার কথা স্বীকার করেন তিনি।

গাজওয়াতুল হিন্দ কী?
গাজওয়াতুল হিন্দ হলো ইসলামের নবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর একটি ভবিষ্যদ্বাণী। যাতে বলা হয়েছে, হিন্দুস্থানে (ভারতীয় উপমহাদেশ) অমুসলিমদের সঙ্গে মুসলিমদের একটি যুদ্ধ হবে এবং সেই যুদ্ধে মুসলমানরা বিজয় লাভ করবেন। যদিও বিষয়টি নিয়ে ভিন্নমত রয়েছে। অনেক ধর্মবিদ ও ইতিহাসবেত্তা মনে করেন এই যুদ্ধ ইতোমধ্যে সংগঠিত হয়েছে। কিন্তু গাজওয়াতুল হিন্দ-এর মতবাদকে সামনে রেখেই সংগঠিত হচ্ছে বাংলাদেশ ও ভারতের জঙ্গিরা।

সিটিটিসির একজন কর্মকর্তা বলছেন, বাংলাদেশের নিষিদ্ধ তিন জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলাম, জেএমবি ও হরকাতুল জিহাদ বা হুজি মূলত আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন আল-কায়েদার অনুসারী। আল-কায়েদা ভারতীয় উপমহাদেশে শাখা ঘোষণার (একিউআইএস বা আল কায়েদা ইন ইন্ডিয়ান সাবকন্টিনেন্ট) পর থেকেই তারা একজোট হয়ে কাজ করার চেষ্টা করছিল।

সিটিটিসির প্রধান মো. আসাদুজ্জামান অবশ্য জঙ্গিদের মাথাচাড়া দিয়ে ওঠা ও নতুন করে সুসংগঠিত হওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, ‘গ্রেফতার এবং অভিযান মানেই আমাদের এখানে জঙ্গিবাদ এখনও নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। আমরা নিয়মিত নজরদারির মাধ্যমে জঙ্গিবাদ দমানোর চেষ্টা করছি।’

লেখক পরিচিতি: নুরুজ্জামান বাংলাদেশের জনপ্রিয় সংবাদপত্র বাংলা ট্রিবিউন-এর সঙ্গে যুক্ত।

কৃতজ্ঞতা স্বীকার: বাংলা ট্রিবিউন

We are not big media organisation. Your support is what keeps us moving. Don't hesitate to contribute because, work, for society needs society's support. Jai Hind.