আসাম থেকে নিউ জলপাইগুড়ি হয়ে কাশ্মীর যাচ্ছে রোহিঙ্গারা, উঠে এলো চাঞ্চল্যকর তথ্য

0
165

নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশনে গ্রেপ্তার হওয়া ২ রোহিঙ্গা মহিলা মুসলিম অনুপ্রবেশকারীকে জেরা করে চাঞ্চল্যকর তথ্য পেলো জিআরপি। চোরাপথে আসাম সীমান্ত দিয়ে ভারতে অনুপ্রবেশ এবং তারপর এজেন্ট মারফত নিউ জলপাইগুড়ি হয়ে কাশ্মীরে পৌঁছে যাওয়া। পুরো পরিকল্পনা করেই এইভাবেই শয়ে শয়ে রোহিঙ্গা ভারতে অনুপ্রবেশ করছে। ইতিমধ্যেই কয়েকশো রোহিঙ্গা কাশ্মীরে পৌঁছে গিয়েছে এবং তাঁরা কাশ্মীরের বিভিন্ন এলাকায় স্থায়ীভাবে ঘাঁটিও গেড়েছে। 

কয়েকদিন আগেই দুই রোহিঙ্গা মহিলাকে গ্রেপ্তার করে জিআরপি। তাদের সঙ্গে গ্রেপ্তার করা হয় আসামের করিমগঞ্জের রাতাবাড়ির বাসিন্দা জাহিরুল ইসলামকে। তাদেরকে দফায় দফায় জেরা করে যা তথ্য পাওয়া গিয়েছে, তাতে চমকে গিয়েছেন তদন্তকারীরা। জিজ্ঞাসাবাদে তাঁরা জানায় যে, তাঁরা বাংলাদেশের কক্সবাজারের শরণার্থী শিবির থেকে পালিয়ে আসাম সীমান্ত দিয়ে চোরাপথে ভারতে প্রবেশ করেন। তারপর এজেন্ট মারফত কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসে চেপে বসেন। তাদের আত্মীয়রা অনেক আগেই ভারতে চলে এসেছে। কয়েকজন কাশ্মীরে পৌঁছে গিয়েছে অনেক আগেই। তাঁরা এও জানায় যে, এইভাবে অনেকেই ভারতে এসেছে। 

গত বছরের নভেম্বর মাস থেকেই লাগাতার নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশনে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশকারী গ্রেপ্তার হওয়ার ঘটনা ঘটছে। এর আগে দিল্লীগামী আনন্দবিহার এক্সপ্রেস থেকে  বহু রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশকারীদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এখনও পর্যন্ত ৩০ জন রোহিঙ্গাকে গ্রেপ্তার করেছে জিআরপি ও রেল পুলিশ। তাঁরা সকলেই আসাম সীমান্ত দিয়ে ভারতে অনুপ্রবেশ করেছিল। তদন্তকারীদের অনুমান, রোহিঙ্গাদের ভারতে অনুপ্রবেশ করাতে একটি বড় চক্র কাজ করছে। তাঁরা প্রথমে আসাম সীমান্ত দিয়ে রোহিঙ্গাদের ভারতে নিয়ে আসার পরে এজেন্ট মারফত কাশ্মীর ও দিল্লী নিয়ে যাচ্ছে। আর এক্ষেত্রে করিডোর হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশনকে। 

We are not big media organisation. Your support is what keeps us moving. Don't hesitate to contribute because, work, for society needs society's support. Jai Hind.