হিন্দু মেয়েরা কি গনিমতের মাল?

0
860

© সুদীপা ঘোষ মন্ডল


পশ্চিমবঙ্গে যত নারী ধর্ষণ হয় তার পেছনে ৯০% ধর্ষনকারী বিশেষ সম্প্রদায়ের কেন ?


পার্কস্ট্রীট ২০১২,  ৬ ফেব্রুয়ারি ~ একজন বিদেশিনীকে গ্যাংরেপ করা হলো , অভিযুক্ত কাদের খান ও তার দল। ধর্ষিতা মারা গেল বিচার না পেয়ে, ধর্ষনকারী প্রমাণ অভাবে বুক ফুলিয়ে ঘুরছে তার নিকটস্থ আজ মেম্বার অফ পার্লামেন্ট। কি সুন্দর বিচার।

কামদুনি , বারাসাত ২০১৩, ৭ জুন ~ ২০ বছরের একটা বাচ্চা মেয়ে ডিরোজিও কলেজে পড়ত ২য় বর্ষে পড়ত। আট জন মিলে রেপ করে মেয়েটার পা দুটো ধরে নাভি পর্যন্ত চিরে দেয়। ধর্ষনকারী আনসার আলী , আমিন আলী সাইফুল,আলি মোল্লা, আমীনুল ইসলাম, শেখ ইমানুল ইসলাম, ভোলানাথ। আজও ফাঁসি হয় নি।
এরপর একের পর এক ২০১৪ কোলকাতা , বীরভূম গ্যাং রেপ।
 

নদীয়ার রানাঘাটে ,২০১৫~৭১ বছরের বৃদ্ধা খ্রীষ্টান সন্ন্যাসীনি গ্যাংরেপ হয়, ধর্ষনকারীরা অধরা।
২০১৭ হাওড়া রেপ কেস।

গঙ্গারামপুর, দক্ষিন দিনাজপুর, ২০১৯ ~  জবা রায়কে রেপ করে হাত পায়ের শিরা কেটে নদীর ধারে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। অভিযুক্ত মাজিদুর রহমান সাজা বলতে জেলে।

মালদহ ২০১৯ আদিবাসী মেয়ে রেপ করে ক্ষত বিক্ষত দেহ টা ফেলে রেখে পালিয়ে যায় আমবাগানে।

গঙ্গারামপুর , দঃ দিনাজপুর ২০১৯,৬ ই ডিসেম্বর~ প্রমীলা বর্মন একজন দলিত বাচ্চা মেয়ে মাধ্যমিক দিত এবার, সেই গ্যাং রেপ ৪ জন বন্ধু গ্যাংরেপ করে পেট্রোল ঢেলে জ্বালিয়ে দেয় দেহটা ঠিক হায়দ্রাবাদের মতো , কুকুর শেয়ালে দেহটা খেয়ে টেনে বার করে। অভিযুক্ত মাহাবুর রহমান ।

ইসলামপুর, উঃ দিনাজপুর,১৯শে জুলাই, ২০২০~ মামপি সিংহ একজন দলিত মেয়ে মাধ্যমিক দিয়েছিল এবার , আবার সেই রেপ অভিযোগের আঙুল সেই ঐ বিশেষ সম্প্রদায়ের ফিরোজ আলীর দিকে।

একটা প্রশ্ন সমাজকে করতে চাই কেন হিন্দু মেয়েরা কি গনিমতের মাল নাকি যে একের পর এক শেষ হবে ঐ হায়না নরপিশাচ গুলোর হাতে , দুদিন মোমবাতি মিছিল আর রাজনৈতিক নেতাদের শোকবার্তা কিছু ক্ষতিপূরন নিয়ে দু’দিন পর ভুলে যাবো?

আমাদের ঘরের মেয়ে বোন বৌ বাচ্চা গুলোর কি বাঁচার অধিকার নেই। প্রশাসন অন্ধ আইন কোনো জবাব আছে তোমার কাছে? কোথায় সরকার? কোথায় নেতা নেত্রীরা যারা ভোট ব্যাঙ্কের জন্য নির্লজ্জের মতো পা চাটে আর প্রশাসনকে কৃতদাসের মতো হাত পা বেঁধে ফেলে রাখে। এভাবে আর কতোদিন কত বোনকে হারাবো আমরা?
একটা হাতে গুনে উদাহরণ দিলাম , এরকম কয়েক লাখ ধর্ষিতা বিচার না পেয়ে গুমরে কেঁদে সম্মানের জন্য মারা গেছে। এই নগ্ন সভ্য সমাজের চোখ খুলুক। হ্যাসট্যাগ হ্যাসট্যাগ খেলে কিছু হবে না। জাস্ট কিচ্ছু হবে না ।। আজ বলছি মিলিয়ে নেবেন ২০৪০ সাল আসতে আসতে বাঙালি হিন্দু এই সম্প্রদায়টা আর থাকবে না এই রাজনীতির চক্করে । এখনও সময় আছে ভাবুন আরেকটা ১৯৪৬ আরেকটা ১৯৭১ হবার আগে হিন্দু বাঙালি ভাবো। ভাবো। 

We are not big media organisation. Your support is what keeps us moving. Don't hesitate to contribute because, work, for society needs society's support. Jai Hind.