পশ্চিমবঙ্গে মুসলিম শিশুর সংখ্যা হিন্দু শিশুর থেকে অনেক বেশি

0
947

© বল্লাল সেন

পশ্চিমবঙ্গে শিশুদের মধ্যে মুসলমান জনসংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং মুসলমান এলাকার জনসংখ্যার অনুপাত শিশুদের মধ্যে হিন্দু এলাকার থেকে বেশি বৃদ্ধি পাচ্ছে । এই হিসাব দেখানোর জন্য মুসলমান অধ্যুষিত এলাকা গুলিকে চার ভাগ করেছি । এক মুসলমান সংখ্যাগরিষ্ঠ ও মুসলমান অধ্যুষিত জেলা গুলি ,এই জেলাগুলিতে নূন্যতম 35%মুসলমান থাকে ।দুই সেইসব মহকুমা গুলি যেখানে নূন্যতম 30%+0-6 বাচ্চা মুসলমান তবে সেই মহকুমা গুলি মুসলমান অধ্যুষিত জেলাতে পরে না ।

তিন সেইসব ব্লক বা এক লাখের বেশি জনসংখ্যার শহর যেখানে 30%এর বেশি 0-6বাচ্চা মুসলমান কিন্তু সেই ব্লক গুলি মুসলিম অধ্যুষিত জেলা বা মহকুমাতে পরে না । চার কলকাতা মহানগরীর মধ্যে কলকাতা পুরসভা এলাকা । এবার এই এলাকা গুলির প্রসঙ্গে আসছি পর্যায় ক্রমে ।

পশ্চিমবঙ্গ এর অর্ধেক এরও বেশি মুসলমান থাকে পাচটি জেলাতে । দ 24 পরগণা, বীরভূম, মালদা , মুর্শিদাবাদ ও উ দিনাজপুরে । দ 24 পরগনা তে 35%, বীরভূমে 37%মুসলমান আছে ও বাকি তিনটি মুসলমান সংখ্যাগরিষ্ঠ । এই পাচ জেলার জনসংখ্যা 2,57,64,151 জন যার মধ্যে 1,30,93, 416জন হিন্দু ও 1,24,55,023জন মুসলমান যা জনসংখ্যার 50.82% ও 48.34%। এই পাচ জেলার 0-6 বয়সী দের সংখ্যা 35,81,753 জন যার মধ্যে হিন্দু ও মুসলমান 15,08,427 জন ও 20,43,005জন যা 0-6বয়সী দের 42.11% ও 57.04% ।

এই পাচ জেলার জনসংখ্যা মোট রাজ্যের 28.23%
কিন্তু 0-6বয়সী দের মধ্যে এটা 33.85% । অর্থাৎ অল্প বয়সী দের মধ্যে এই জেলাগুলির জনসংখ্যার অনুপাত বাড়ছে । রাজ্যের হিন্দুদের 20.334% ও মুসলমান দের 50.52% এই জেলাগুলিতে থাকে কিন্তু রাজ্যের 0-6হিন্দু ও মুসলমান এর 22.72% ও 55.45 % থাকে জেলাগুলিতে । অর্থাৎ অপেক্ষাকৃত উচ্চ জন্মহার এর কারনে এই জেলাগুলির হিন্দু ও মুসলমান এর অনুপাত শিশু হিন্দু ও মুসলমান এর মধ্যে বাড়ছে রাজ্যে ।

এর পরে আসি বেশ কিছু মহকুমা যেখানে মুসলমান একটি সিরিয়াস ইস্যু জন সংখ্যা ও ভোট ব্যাঙ্কের দিক থেকে । এগুলিকে বাছা হয়েছে যে সব মহকুমা তে 30%এর বেশি 0-6বাচ্চা মুসলমান । এই মহকুমা গুলি হল হাওড়া জেলার হাওড়া ও উলুবেড়িয়া মহকুমা (সম্পূর্ণ জেলা ),পুর্ব বর্ধমান এর কালনা ও কাটোয়া মহকুমা,নদিয়ার তেহট্ট ও কৃষ্ণনগর মহকুমা,উ 24 পরগনার বারাসাত ও বসিরহাট মহকুমা , দ দিনাজপুর এর গঙ্গারামপুর ও কুচবিহারের দিনহাটা মহকুমা ।

এই মহকুমাগুলির মোট জনসংখ্যা 1,56,60,241 জন এর মধ্যে 1,01,55,298জন হিন্দু ও 53,83,301জন মুসলমান যা জনসংখ্যার 64.85 % ও 34.31% । কিন্তু 0-6 বছর বয়সী 17,13,612 জনের মধ্যে 982,317জন হিন্দু ও 735,240 জন মুসলমান যা 0-6 দের 56.73% ও 42.46%। এই অঞ্চলের জনসংখ্যা রাজ্যের 17.16% কিন্তু 0-6 দের মধ্যে এটা 16.19% , হিন্দু ও মুসলমান এর 15.77ও 21.83% এই অঞ্চলে বাস করে কিন্তু 0-6 হিন্দু ও মুসলমান এর 14.79%ও 19.96% ।

এই মহকুমা গুলিতে মুসলমান এর জন্মহার হিন্দুর থেকে বেশি তবে প্রথম পাচটি জেলার থেকে কম ।
তাই এখানে অল্প বয়সী মুসলমান দের মধ্যে অনুপাত কমে যাচ্ছে কিন্তু হিন্দুদের জন্মহার অনেক কম হওয়াতে শিশুদের মধ্যে মুসলমান এর সংখ্যা বেশি । এবার আসি মুসলমান শিশু আছে কিন্তু মহকুমা , জেলা হিন্দু অধ্যুষিত এমন অঞ্চল গুলির হিসাবে । এইগুলি হল কুচবিহারের সদর মহকুমার কুচবিহার -1,তুফানগঞ্জ মহকুমার তুফানগঞ্জ-1ব্লক,মেখলিগঞ্জ মহকুমার মেখলিগঞ্জ ব্লক ,মাথাভাঙার শীতলকুচি ব্লক ।

দ দিনাজপুর এর বালুরঘাট মহকুমার তপন ও কুমারগঞ্জ ব্লক, নদিয়ার কল্যানি মহকুমার হরিণঘাটা ব্লক ,উ 24 পরগণার বিধাননগর মহকুমার রাজারহাট ব্লক ,বারাকপুরের কামার হাটি শহর ,হুগলির শ্রীরামপুর এর চন্ডিতলা 1 ব্লক ও ডানকুনি শহর ,পুর্ব মেদিনীপুর এর হলদিয়া মহকুমার সুতাহাটা ও নন্দীগ্রাম 1 ব্লক ,পশ্চিম মেদিনীপুর এর মেদিনীপুর মহকুমার মেদিনীপুর, কেশপুর ও গড়বেতা 3 ব্লক । পুর্ব মেদিনীপুর এর পাশকুড়া শহরে অনেক মুসলমান থাকলেও ছোট শহর হওয়াতে সেটি আপাতত বাদ দিলাম ।

এই সব ব্লক ও শহরে জনসংখ্যা 38,59,644জন যার মধ্যে হিন্দু ও মুসলমান 26,38,956জন ও 11,83,052জন যা জনসংখ্যার 68.37 ও 30.65% । 0-6; বয়সী 447,222জনের মধ্যে হিন্দু মুসলিম 280,254জন ও 162,150 জন যা 0-6 এর মধ্যে 62.67 ও 36.26% । হিন্দু ও মুসলমান দের 4.1 ও 4.8 % এই এলাকায় থাকলেও 0-6 দের মধ্যে এটা 4.22ও 4.4% ।রাজ্যের মূল জনসংখ্যা ও 0-6 সংখ্যা উভয়ের মধ্যেই এই অঞ্চলের অনুপাত 4.23% । এই অঞ্চলগুলিতে তফশিলি, আদিবাসী ও অবাঙালি হিন্দুদের কারনে বাচ্চাদের মধ্যে রাজ্যে অনুপাত বেড়েছে কিন্তু মুসলমান দের জন্মহার বেশি হওয়াতে বাচ্চাদের মধ্যে তাদের সংখ্যার অনুপাত বাড়ছে ।

অন্যদিকে সবচেয়ে বেশি মুসলমান থাকা জেলা গুলির থেকে জন্মহার কম বলে শিশু মুসলমান দের মধ্যে মুসলমান এর রাজ্যে অনুপাত কমছে । সর্বশেষ আসি কলকাতা শহরের প্র্সঙ্গে । এই শহরে 44,96,694 জনের মধ্যে 34,40,290 জন হিন্দু ও 926,414জন মুসলমান । 0-6 বয়সী 339,323 জনের মধ্যে 229,111জন হিন্দু ও 100,652 জন মুসলমান । মূল জনসংখ্যার 76.5% হিন্দু ও 20.6% মুসলমান কিন্তু 0-6 দের মধ্যে এটা 67.52% ও 29.66% । রাজ্যের 4.93% মানুষ এই শহরে থাকলেও 0-6দের মাত্র 3.21% এই শহরে থাকে । হিন্দু ও মুসলমান এর 5.34% ও 3.76% এই শহরের হলেও 0-6 দের মধ্যে এটা 3.45 ও 2.73% ।

পরিসংখ্যান থেকে পরিস্কার এই শহরে হিন্দু ও মুসলমান উভয়ের জন্মহারই কমেছে কিন্তু হিন্দুদের জন্মহার অত্যাধিক কমে যাওয়া তে 1 এর নিচে নামাতে মুসলমান এত বেশি বাচ্চাদের মধ্যে ।মোট এই চারটে এলাকা মিলিয়ে জনসংখ্যা 4,97,80,730 জন যার মধ্যে হিন্দু 2,93,27,960 জন ও মুসলমান 1,99,47,790 জন । 0-6 দের সংখ্যা 60,81,910 জন এর মধ্যে হিন্দু ও মুসলিম
30,00,109জন ও 30,41,047জন । মূল জনসংখ্যার মধ্যে হিন্দু ও মুসলমান 58.91 % ও 40.07% কিন্তু 0-6এর মধ্যে 49.33% ও 50%।

হিন্দু ও মুসলমান এর 45.55% ও 80.91 % এই অঞ্চলে থাকে কিন্তু 0-6দের মধ্যে এই অনুপাত 45.18% ও 82.54% । রাজ্যের মোট জনসংখ্যার 54.55% এই এলাকায় থাকলেও 0-6 দের 57.48% এই অঞ্চলে থাকে । অর্থাৎ এই এলাকায় হিন্দু কমছে ও মুসলমান বাড়ছে । মুসলমান এর বৃদ্ধির হার ও জন্মহার হিন্দুর থেকে অনেক বেশি । এই অঞ্চলে মুসলমান বাচ্চাই সংখ্যাগরিষ্ঠ । রাজ্যে 11.59% বাচ্চা 0-6 কিন্তু এখানে 12.22% ,রাজ্যে হিন্দু ও মুসলমান এর মধ্যে শিশুরা 10.31% ও 14.94% হলেও এখানে 10.23 ও 15.25%।

এরপর আসি বাকি রাজ্যের হিসাবে । বাকি রাজ্যে 4,14,95,385 জনের মধ্যে হিন্দু ও মুসলমান 3,50,57,586 ও 47,07,035 জন যা জনসংখ্যার 84.49% ও 11.34% । কিন্ত 0-6 দের মধ্যে এটা 44,99,556;জনের মধ্যে 36,40,007 জন ও 643,448জন যা 0-6 এর 80.9% ও 14.30% । 0-6 বয়সিরা এখানে হিন্দুদের 10.38% ও মুসলমান এর 13.67% । এখানে হিন্দুদের জন্মহার মুসলমান অধ্যুষিত এলাকা থেকে কিছুটা বেশি ও মুসলমান দের কিছুটা কম তবে সামগ্রিক ভাবে মুসলমান এর জন্মহার বেশি বলে মুসলমান বাড়ছে ও হিন্দু কমছে ।

এই গোটা এলাকা তে সামগ্রিক এর থেকে 0-6এর মধ্যে জনসংখ্যার হার বেড়েছে 2.93% । রাজ্যের বিধানসভা 294 টা তার মধ্যে এখানে আসন আছে 165টি । এর মধ্যে 80 টা আছে মুসলমান অধ্যুষিত পাচ জেলাতে ( একটির অর্ধেক কল কাতা তে পড়ে) । এর মধ্যে 62 আসন মুসলমান এর দখলে । এই পাচ জেলাতে জনসংখ্যার হার রাজ্যের 28.22% । আসন থাকার কথা 28.22* 2.94=83 কিন্তু আছে 80টা । 0-6 এর সংখ্যা 33.85% । সূত্র মেনে এখানে আসন হবার কথা 33.85*2.94=100 2050 সালের দিকে আসন পুনর্বিন্যাস হয়ে ।

এবার আসি মহকুমা গুলির প্র্সঙ্গে । মহকুমা গুলির রাজ্যে জনসংখ্যার অনুপাত 17.16% । আসন থাকা উচিৎ 2.94*17.16=51আছে 52 টি । 0-6এর হার 16.19% আসন হওয়া উচিৎ 48 টা অর্থাৎ তিন চারটে কমার কথা কিন্তু আমার ধারণা কমবে একটি এবং সেটি হাওড়া শহরে কারন গ্রাম অঞ্চল গুলিতে মোটামুটি ভালই জনসংখ্যা বাড়ে শহরের তুলনাতে যদিও গ্রামের লোক শহরে মাইগ্রেট করে বলে অতটা প্রতিফলন হয় না সেন্সাসে ।

বাকি অঞ্চলগুলির মধ্যে কলকাতা বাদে অন্যান্য মুসলমান অধ্যুষিত ব্লক ও শহরে জনসংখ্যার অনুপাত রাজ্যের 4.23% , 0-6 এর মধ্যেও তাই । এখানে আসন থাকার কথা12- 13 টি আছে 17 টি যদিও কয়েকটি আংশিক ভাবে যেমন মেখলিগঞ্জ, চাপদানি হলদিয়া,শালবনি ও মেদিনীপুর । এগুলির গরিষ্ঠ অংশই অন্য ব্লক ও শহরে । রাজধানী কলকাতা তে জনসংখ্যা রাজ্যের 4.9% ও 0-6 দের মধ্যে 3.2% । কলিকাতা তে আসন থাকার কথা 14 টি আছে সাড়ে ষোল টি তার মধ্যে মেটেবুরুজ দ 24 পরগণার সাথে ভাগ করা ।

তো 0-6 দের সংখ্যা ধরলে 16 আসন কমে 10 হবে তবে যেহেতু শহরতলি তে জেলা থেকে মাইগ্রেশন হয় ও প্রচুর হিন্দি উর্দুভাষী এখানে আসে তাই 16 আসন কমে 13 হতে পারে । হিন্দু অধ্যুষিত রাসবিহারী ও ভবানিপুর অন্যদিকে মানিকতলা ও শ্যামপুকুর মিশে যেতে পারে । জোড়াসাঁকো মিশতে পারে চৌরঙ্গি সাথে । দুটি হিন্দু কেন্দ্র কমে যাবে জোড়াসাঁকো মুসলমান অধ্যুষিত হয়ে পড়বে চৌরঙ্গির সাথে মিশে ও এখনকার 7/16 আসন মেটেবুরুজ বাদ দিয়ে হবে 7/13 ।

পাচ জেলার মধ্যে মুর্শিদাবাদ এর বহরমপুর, মালদার গাজোল , হাবিবপুর , ইংরেজ বাজার ,মালদা হিন্দুদের হাতে থাকবে । বীরভূম এর সাইথিয়া,ময়ূরেশ্বর ও রামপুরহাট মুসলমান এর হাতে চলে যাবে ও কেবল সিউড়ি ও দুবরাজপুর থাকবে এখনকার হিসাবে । দ 24 পরগণার দুই সোনারপুর, কাকদ্বীপ মহকুমার তিনটে ও গোসাবা ও উ দিনাজপুর এর রায়গঞ্জ, কালিয়াগঞ্জ হিন্দুর হাতে থাকবে । এর বাইরে ভবিষ্যতে এই জেলায় হওয়া 100আসন এর মধ্যে 85আসন মুসলমান এর হাতে থাকবে ।

মহকুমা গুলিতে 51 আসনের মধ্যে 33টা মুসলিম
আসন ছাড়াও দিনহাটার দিনহাটা , গঙ্গারামপুর এর গঙ্গারামপুর, উলুবেড়িয়ার শ্যামপুর ও আমতা , কৃষ্ণনগরের কৃষ্ণনগর উত্তর ও নবদ্বীপ, কালনার পুর্বস্থলী উত্তর ও কাটোয়া আসন মুসলমান দের হাতে চলে যাবে । মোট 33/52 টা 41/51 হবে । বাকি ব্লক ও পুরসভা গুলিতে থাকা 17 আসনের মধ্যে (কয়েকটি আংশিক ) রাজারহাট নিউ টাউন , কামারহাটি,শিতলকুচি, খন্ডঘোষ,চন্দিতলা ,কুমারগঞ্জ,কেশপুর মুসলমান এর দখলে । ভবিষ্যতে কুচবিহারের কুচবিহার দক্ষিন ,নাটাবাড়ি ,নদিয়ার হরিণঘাটা (গয়েশপুর), পুর্ব বর্ধমান এর বর্ধমান উত্তর ,পুর্ব মেদিনীপুর এর নন্দীগ্রাম,হলদিয়া বের হতে পারে 7/17,13/17 হবে ।

বাকি আসনের মধ্যে থেকে জলপাইগুড়ির রাজগঞ্জ,পশ্চিম বর্ধমানের জামুড়িয়া বা কুলটি , পুর্ব বর্ধমানের ভাতার ,হুগলির খানাকুল , পুর্ব মেদিনীপুর এর পাশকুড়া পুর্ব ও পশ্চিম এবং উ 24 পরগণার বারাকপুর মুসলমান দখল করতে পারে এই অঞ্চল গুলিতে 25%: এর উপর বাচ্চা মুসলমান । মোটামুটি চার প্রকার মুসলমান অধ্যুষিত অঞ্চলে আসন 80+52+17+16=165 যার মধ্যে 62+33+7+7=109 টি মুসলমান অধ্যুষিত । ভবিষ্যতে এই এলাকা গুলিতে আসন হবে 165+20-1-3=181 টি যার মধ্যে এই 109 টি বাদেও 6+9+20=35 টি আসন মুসলমান এর হাতে থাকবে যা হল =109+35=144 294 এর মধ্যে ম্যাজিক ফিগার থেকে 3 দুরে ।

বাকি হিন্দু অধ্যুষিত অঞ্চল থেকে সাতটা আসন ধরলে মোট আসন হচ্ছে 151/294 যা স্পষ্টতই মেজরিটি ।2050 এর দিকে মুসলমান রা এই প্রাশাসনিক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে , রাজ্যে যদি 50%নাও হয় । তারপর গৃহযুদ্ধ ,গণহত্যা ,1946-47 এর ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি আর কি । জন্মহার কমে গেলে কি হয় আপনারাই ভেবে দেখুন । পুরো জনগণনার তথ্য সেন্সাস ইন্ডিয়া সাইট https://censusindia.gov.in/2011censu
এর পপুলেশন এনুমারেশন ডাটার সি -01 ফর্ম পশ্চিমবঙ্গ এর জন্য থেকে সংগৃহীত ।

We are not big media organisation. Your support is what keeps us moving. Don't hesitate to contribute because, work, for society needs society's support. Jai Hind.