বঙ্গাব্দের প্রবর্তক মহারাজা শশাঙ্ক

0
468

© কুশল বরণ চক্রবর্ত্তী

বঙ্গাব্দের উৎপত্তি নিয়ে বর্তমানে একাধিক মতবাদ প্রচলিত। এ একাধিক মতের মধ্যে চারজন সুবিখ্যাত রাজাকে কেন্দ্র করে চারটি মত রয়েছে। এ চারটি মত হল:

প্রথম: সম্রাট আকবর
দ্বিতীয়: সুলতান হুসেন শাহ
তৃতীয়:তিব্বতীয় শাসক স্রং-সন-গাম্পো
চতুর্থ: গৌড় বঙ্গের প্রথম সার্বভৌম রাজা শশাঙ্ক

এ চারটি মতের মধ্যে সম্রাট আকবরকে নিয়ে প্রথম মতটি বাংলাদেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগোষ্ঠীর মাঝে বেশ জনপ্রিয়।পাকিস্থান আমল থেকে বিশেষ রাজনৈতিক কারণে সম্রাট আকবর বঙ্গাব্দের প্রচলন করেছে এ মতটিকে প্রচার করা হয়। অথচ সাধারণ হিসেবেই বোঝা যায় বঙ্গাব্দ চলছে চৌদ্ধশত বছর ধরে এবং সম্রাট আকবর হলেন ষোড়শ শতাব্দীর। বঙ্গাব্দের সূচনাকাল থেকে সম্রাট আকবরের সময়কালের মধ্যে আটশত বছরের ব্যবধান। সম্রাট আকবর কি করে তার সময়কালের আটশত বছর পূর্বে চলে গিয়ে বঙ্গব্দের প্রবর্তন করে আসলেন। বিষয়টি যথাযথ বোধগম্য না হলেও বর্তমানে ব্যাপকভাবে প্রচারণা চালানো হয়। বিষয়টির ব্যাপক প্রচারণার কারণে অধিকাংশই কথা বলেন। কারণ মিথ্যা বারবার বলতে সত্যের মত শোনায়। জানিনা সম্রাট আকবরের কাছে কোন টাইমমেশিন ছিলো কিনা, যে টাইমমেশিনে চড়ে তিনি আটশত বছর পূর্বের বঙ্গাব্দ প্রবর্তন করে এসেছেন। বিষয়টি বর্তমানে ভাবা প্রয়োজন এবং গবেষণা হওয়া প্রয়োজন। সম্রাট আকবরের বঙ্গাব্দ প্রবর্তন প্রসঙ্গে বলা হয়ে থাকে যে, ১৫৫৬ খ্রিস্টাব্দ, হিজরী ৯৬৩ সালটি ছিলো সম্রাট আকবরের সিংহাসন আরোহণের বছর; সেই বছরটি স্মরণীয় করে রাখতে তাকে বঙ্গাব্দের প্রথম বছর হিসেবে গণ্য করে বঙ্গাব্দের প্রবর্তন করা হয়। সম্রাট আকবরের নির্দেশনায় এ কঠিন কাজটি সম্পাদন করেন আমীর ফতই উল্লাহ সিরাজি। তার প্রচেষ্টাতেই আরবি হিজরি সন এবং স্থানীয় ফসলি সনকে সমন্বয় করে বঙ্গাব্দ প্রবর্তিত হয়। কিন্তু এ তথ্যগুলো প্রচলিত হলেও যৌক্তিক নয়।এ যুক্তি অনুসারে ১৫৫৬ খ্রিস্টাব্দের আগে কোন বঙ্গাব্দ ছিল না। কিন্তু বিষয়টি সত্য নয়। সম্রাট আকবর পূর্ববর্তী বহু স্থানেই বঙ্গব্দের উল্লেখ পাওয়া যায়। বাকুড়ার একটা মন্দিরে ১০২ বঙ্গাব্দের উল্লেখ আছে। বৃন্দাবনচন্দ্র পুততুণ্ড রচিত “চন্দ্রদ্বীপের ইতিহাস” গ্রন্থে ৬০৬ বঙ্গাব্দের উল্লেখ পাওয়া যায়।এমন অসংখ্য দৃষ্টান্ত দেয়া যায়। যারা পাণ্ডুলিপি বা পুরাতত্ত্ব নিয়ে গবেষণা করছেন তারা দেখেছেন বা দেখে থাকবেন যে ; সম্রাট আকবরের সময়ের বা ১৬ শতাব্দীপূর্ব পাণ্ডুলিপিগুলিতে অনেক স্থানেই বঙ্গাব্দের নিদর্শন রয়েছে। বাংলা অঞ্চলে পাওয়া পাণ্ডুলিপিতে অধিকাংশ স্থানেই শকাব্দ এবং কিছুকিছু স্থানে শুধুমাত্রই তারিখ দেয়া আছে, সেই তারিখগুলি সুস্পষ্টরূপে বঙ্গাব্দের। যারা সম্রাট আকবরকে বঙ্গাব্দের প্রবর্তক বলেন এবং বলেন ৯৬৩ হিজরী সালকে বঙ্গাব্দে প্রতিস্থাপন করেই বঙ্গাব্দ যাত্রা শুরু করেছে, বিষয়টি হাস্যকর এবং বালখিল্য। যদি সম্রাট আকবর পূর্ববর্তী পাণ্ডুলিপি, অভিলেখ বা পুরাতাত্ত্বিক কোন একটি স্থানেও বঙ্গাব্দের উল্লেখ করা থাকে, তবেই বঙ্গাব্দের প্রবর্তক হিসেবে সম্রাট আকবর তত্ত্ব নস্যাৎ হয়ে যায়। যে বিষয়টি সাধারণ দৃষ্টিতেই বোঝা যায় একটি শিশুও বিষয়টি বুঝতে পারে ; অথচ দুঃখজনকভাবে হলেও সত্য – এ তত্ত্বটি ভাঙা রেকর্ডের মত প্রতিনিয়ত বাজিয়ে প্রচার করা হচ্ছে। বাস্তব ভিত্তি অনেক নড়বড়ে হলেও শুধুমাত্র গায়ের জোড়ে তত্ত্বটি প্রচার করা হচ্ছে।

বঙ্গাব্দের উৎপত্তি নিয়ে দ্বিতীয় এবং তৃতীয় মতবাদটির পক্ষে বিশেষ যুক্তি নেই। তাই এ নিয়ে বিশেষ আলোচনায় যাচ্ছি না।আমরা চতুর্থ এবং অত্যন্ত জোরালো মতটি নিয়ে আলোচনা করে এর পক্ষে যুক্তিসমূহ দেখার চেষ্টা করবো।পঞ্জিকার বর্ষগণনা অনেক জটিল। আমরা তাই কোন জটিল এবং কুটিল পথে না যেয়ে সহজভাবে বিষয়টি দেখার চেষ্টা করবো। এখন ইংরেজি চলছে ২০২১ সাল এবং বাংলার চলছে ১৪২৭ বঙ্গাব্দ। ইংরেজি কত খ্রিস্টাব্দ থেকে বঙ্গাব্দ শুরু হয়েছে এটা জন্যে আমাদের ২০২১ খ্রিস্টাব্দ থেকে ১৪২৭ বঙ্গাব্দকে বিয়োগ করলে আমরা ৫৯৪ খ্রিস্টাব্দ পাই। অর্থাৎ ইংরেজি ৫৯৪ খ্রিস্টাব্দেই বঙ্গাব্দ প্রবর্তিত হয়। বঙ্গাব্দ প্রবর্তনের সময়টি আমরা পেলাম, এখন আমরা বঙ্গাব্দ কে প্রবর্তন করেছেন সে বিষয়টি জানার চেষ্টা করবো। সারা ভারববর্ষের ইতিহাসে দেখা যায়, এ সনগুলো সাধারণত রাজাকে কেন্দ্র করে প্রবর্তিত হয়। রাজার সিংহাসন আরোহন অথবা বিশেষ কোন ঐতিহাসিক, রাজনৈতিক ঘটনাকে কেন্দ্র করে সনগুলো প্রবর্তিত হয়। যদি বঙ্গাব্দ ইংরেজি ৫৯৪ খ্রিস্টাব্দেই প্রবর্তিত হয়, তবে সেই সময় বাংলার শাসক কে ছিলেন? আমরা ইতিহাসের মাধ্যমে জানতে পারি, সে সময়ে বিভিন্ন জনপদে বিভক্ত বাংলার শাসক ছিলেন, গৌড় বঙ্গের প্রথম সার্বভৌম রাজা শশাঙ্ক। তিনি বিভিন্ন জনপদগুলোকে এক করে গৌড় নামক অত্যন্ত শক্তিশালী সাম্রাজ্যের প্রবর্তন করেন।
৫৯৪ খ্রিস্টাব্দটি ছিলো সম্ভবত গৌড় বঙ্গের প্রথম সার্বভৌম রাজা শশাঙ্কের রাজ্যাভিষেকের বছর। তাই রাজ্যাভিষেকের দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখতে তিনি বঙ্গব্দের প্রবর্তন করেন।রাজা শশাঙ্ক ভগবান শিবের পরম ভক্ত ছিলেন। ইতিহাস পাঠকমাত্রই বিষয়টি জানেন। শৈব রাজা অবশ্যই শৈবদের পবিত্র সোমবার দিনটিকেই যে রাজ্যাভিষেক,অব্দ প্রবর্তন সহ সকল কাজেই অগ্রাধিকার দিবেন, এটাই স্বাভাবিক।লোডস্টার, প্ল্যানেটরিয়াম সহ বিভিন্ন সফটওয়্যারের মাধ্যমে ১ বঙ্গাব্দের ১ বৈশাখ দিনটিকে বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, সে দিনটি ছিলো ৫৯৪ খ্রিস্টাব্দের ১২ এপ্রিল। বিশেষভাবে উল্লেখ যে, বারটি ছিলো শৈব সম্প্রদায়ের প্রিয় সোমবার। বাংলাদেশের জাতীয় জ্ঞানকোষ ‘বাংলাপিডিয়া’য় পি.কে. ভট্টাচার্য মহারাজ শশাঙ্ক সম্পর্কে বলেন:

“শশাঙ্ক প্রাচীন বাংলার প্রথম গুরুত্বপূর্ণ নরপতি। নরপতি হিসেবে শশাঙ্ক অত্র অঞ্চলের ইতিহাসে বিশিষ্ট স্থান দখল করে আছেন। শশাঙ্ক ৬০০ থেকে ৬২৫ খ্রিস্টাব্দের মধ্যে রাজত্ব করেন বলে ধারণা করা হয়। মেদিনীপুর থেকে তাঁর ৮ম ও ১০ম রাজ্যাংকে উৎকীর্ণ দুটি লিপি এবং তারিখবিহীন অপর একটি লিপি খড়গপুরের নিকট এগ্রা হতে আবিষ্কৃত হয়েছে। এছাড়া শশাঙ্কের অধীনস্থ গঞ্জামের (উড়িষ্যা) রাজা মাধববর্মার তাম্রশাসন (৬১৯ খ্রিস্টাব্দের), হর্ষবর্ধনের বাঁশখেরা ও মধুবন তাম্রশাসন এবং কামরূপের রাজা ভাস্কর বর্মনের নিধানপুর তাম্রশাসন থেকে তাঁর সম্পর্কে জানা যায়। শশাঙ্কের উৎকীর্ণ স্বর্ণ ও রৌপ্যমুদ্রাও পাওয়া গেছে। গুপ্তদের পতন ও শশাঙ্কের উত্থানের মধ্যবর্তী সময়ে বাংলায় বেশ কিছু স্বাধীন শাসকের উদ্ভব ঘটে। এঁদের অস্তিত্ব সম্পর্কে জানা যায় অল্প কিছু লিপি এবং স্বর্ণ মুদ্রার ভিত্তিতে। রোহতাসগড়ে প্রাপ্ত সিলের ছাঁচে লিখিত ‘শ্রী মহাসামন্ত শশাঙ্ক’, বাণভট্টের সমসাময়িক সাহিত্য উপকরণ, চৈনিক তীর্থযাত্রী হিউয়েন-সাং এর বিবরণ এবং বৌদ্ধ গ্রন্থ আর্যমঞ্জুশ্রীমূলকল্প শশাঙ্কের ইতিহাসের গুরুত্বপূর্ণ উৎস।”

মহারাজ শশাঙ্কের রাজ্যাভিষেকের সময় হিসেবে আমরা বলছি, দিনটি হলো- ৫৯৪ খ্রিস্টাব্দের ১২ এপ্রিল। কিন্তু আমরা বাংলাপিডিয়ায় দেখতে পাই, মহারাজ শশাঙ্কের রাজত্বকাল শুরু ৬০০ খ্রিস্টাব্দ থেকে। দুটি তথ্যের মধ্যে ছয় বছরের পার্থক্য পরিলক্ষিত হয়। পুরাতন ঐতিহাসিক তথ্য পুরাতাত্ত্বিক প্রমাণ ছাড়া সুনির্দিষ্টভাবে বলা অত্যন্ত দুষ্কর। মহারাজ শশাঙ্কের ইতিহাস নিয়ে আমরা কাজ করতে আমরা লক্ষ্য করেছি, অধিকাংশ পণ্ডিত তাঁর শাসনকালকে আনুমানিক ৬০০ খ্রিস্টাব্দ থেকে ৬২৫ খ্রিস্টাব্দ সরলভাবে গ্রহণ করেছেন। তবে মহারাজ শশাঙ্কের সময়টি ৬০০ খ্রিস্টাব্দের ৬ ছয় বছর পূর্বে হলে যৌক্তিক হয়। তবে এরপরেও যদি আমরা তর্কের খাতিরে ধরে নেই যে, সম্রাট শশাঙ্ক ৬০০ খ্রিস্টাব্দেই সিংহাসন আরোহন করেছেন, তবে তবেও বঙ্গাব্দের প্রবর্তক হিসেবে তাঁকে মেনে নিতে সমস্যা নেই। হতে পারে তিনি আনুষ্ঠানিক ক্ষমতাগ্রহণের পূর্বেই বঙ্গাব্দের প্রবর্তন করেছেন। অথবা রাজ্যাভিষেকের পূর্বে তাঁর জীবনের কোন বিশেষ দিনকে স্মরণীয় করতে বঙ্গাব্দের প্রবর্তন করেছেন।পণ্ডিতদের গবেষণায় ভিন্নমত হবে এটাই স্বাভাবিক।তবে সেই ভিন্নমত সত্ত্বেও একথা নির্দ্ধিধায় বলা যায় যে, গৌড় বঙ্গের প্রথম সার্বভৌম মহারাজ শশাঙ্ক হলেন বঙ্গাব্দের প্রবর্তক।

তথ্য সহায়তা:
১.সুনীলকুমার বন্দ্যোপাধ্যায়, বঙ্গাব্দ প্রসঙ্গ
২.বাংলাপিডিয়া

কুশল বরণ চক্রবর্ত্তী
সহকারী অধ্যাপক,
সংস্কৃত বিভাগ,
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

We are not big media organisation. Your support is what keeps us moving. Don't hesitate to contribute because, work, for society needs society's support. Jai Hind.