নরসিংহানন্দ সরস্বতীকে গলা কেটে খুন করার ডাক দিলেন আম আদমি পার্টির বিধায়ক আমানতুল্লাহ খান

0
3048

ফ্রান্সের জিহাদের ছায়া এবার ভারতবর্ষের মাটিতে পৌঁছে গেল। নবী মহম্মদকে অবমাননা করার অভিযোগে এক শিক্ষককে গলা কেটে খুন করেছিল একজন ইসলামিক মৌলবাদী ব্যক্তি। এবার সে একই অভিযোগে স্বামী যতি নরসিংহানন্দ সরস্বতী মহারাজকে গলা কেটে খুন করার ডাক দিলেন আম আদমি পার্টির বিধায়ক আমানতুল্লাহ খান। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে ওই স্বামীজিকে গলা কেটে খুন করার ডাক দেন ওই এম আদমি পার্টির বিধায়ক।

সামজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে তিনি লেখেন, “আমাদের প্রিয় নবী মহম্মদের এই অবমাননা আমরা সহ্য করতে পারি না। এই কাজের একমাত্র শাস্তি জিভ ও গলা কেটে নেওয়া। কিন্তু দেশের আইন আমাদের এই কাজ করার অনুমতি দেয় না। ভারতীয় সংবিধানের ওপর আমাদের ভরসা আছে। আমি চাই দিল্লী পুলিশ এই বিষয়টি দেখুক”। এই টুইটের সঙ্গে একটি ভিডিও যোগ করেছেন তিনি।

প্রেস ক্লাব অফ ইন্ডিয়তে যতি নরসিংহানন্দ সরস্বতী মন্তব্য করেছিলেন যে নবী মহম্মদের সমালোচনা করতে হিন্দুদের ভয় পাওয়া উচিত নয়। সেই প্রেস কনফারেন্সে যতি আরও বলেছিলেন, যদি দেশে ভগবান রাম এবং অন্যান্য দেবতাদের নিয়ে আলোচনা চলতে পারে, তবে নবী মহম্মদ নিয়ে আলোচনা কেন হবে না? মাওলানারা যে বলে যে, নবীজী সম্বন্ধে আলোচনা করলেই গলা কেটে হত্যা করে দেওয়া হবে। এই ভয় থেকে বেরিয়ে আসা উচিত হিন্দুদের।

তিনি আরও বলেন, যদি মুসলিমরা নবী মহম্মদের সম্বন্ধে জেনে যায়, তাহলে তাঁরা নিজেদের মুসলিম বলে পরিচয় দিতে লজ্জাবোধ করবে।

আর এইসব বক্তব্যে ক্ষুব্ধ হয়েছেন আমানতুল্লাহ খান। তিনি সরাসরি ওই হিন্দু সাধুকে গলা কেটে হত্যা করতে উস্কানি দিয়েছেন। তবে সি প্রথম নয়, এর আগেও এই আপ(AAP) বিধায়ক ইসলামিক মৌলবাদী ও দাঙ্গাবাজদের পক্ষ নিয়েছেন। দিল্লীর হিন্দু বিরোধী দাঙ্গায় মূল অভিযুক্ত তাহির হোসেনের সমর্থনে বক্তব্য রাখার পাশাপাশি গ্রেপ্তার হওয়া মুসলিম মৌলবাদীদের জামিন করানোর পিছনে প্রধান ভূমিকায় ছিলেন আমানতুল্লাহ খান।

We are not big media organisation. Your support is what keeps us moving. Don't hesitate to contribute because, work, for society needs society's support. Jai Hind.