কাকদ্বীপ: হিন্দু সাধুকে পোলিং এজেন্ট হিসেবে বসতে বাধা দিলেন এবিপি আনন্দের সাংবাদিক

0
6895

গেরুয়া পোশাক পরা রয়েছে। রয়েছে কপালে তিলক ও মাথায় টিকি। বুথে পোলিং এজেন্ট হিসেবে ছিলেন তিনি। প্রিসাইডিং অফিসার কিংবা অন্য দলের পোলিং এজেন্ট, আপত্তি ছিল না কারওরই। কিন্তু আগে বাড়িয়ে বুথে ঢুকে আপত্তি জানালেন এবিপি আনন্দের সাংবাদিক। রীতিমত ওই পোলিং এজেন্টকে বুথ থেকে বের করে দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছিল। ঘটনা কাকদ্বীপ বিধানসভা এলাকার।

কাকদ্বীপ বিধানসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী দীপঙ্কর জানার হয়ে পোলিং এজেন্ট হিসেবে বুথে পৌঁছে গিয়েছিলেন ওই বিজেপি কর্মী। ওই ব্যক্তি নিজের ধর্মীয় বিশ্বাস অনুযায়ী গেরুয়া পোশাক পরেন, মাথায় তিলক কাটেন এবং মাথায় টিকি রাখেন। কিন্তু তিনি কেন গেরুয়া পরে এসেছেন, সেই নিয়ে আপত্তি তোলেন এবিপি আনন্দের সাংবাদিক। কপালে কেন তিলক কেটেছেন কেন, সেই নিয়েও আপত্তি তোলেন ওই সাংবাদিক। সাংবাদিকটি পোলিং অফিসারকে রীতিমত চাপ দিতে থাকেন যে ওই গেরুয়া পরা, তিলক কাটা, ব্যক্তিকে যেন বের করে দেওয়া হয়। ওই সাংবাদিকের প্ররোচনায় পা দিয়ে পোলিং অফিসার ওই বুথ এজেন্টকে বেরিয়ে যেতে বলেন। এমনকি, বলেন যে আপনি এরকম করতে পারেন না। 

ইতিমিধ্যেই এই ঘটনা দেখার পর সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন নেটিজেনরা। একজন হিন্দু বলেই কি তাঁর সঙ্গে এমন আচরণ? প্রশ্ন তুলেছেন অনেকেই। কেউ কেউ আবার প্রশ্ন তুলেছেন যে, একজন হিন্দুর তাঁর ধর্মীয় বিশ্বাস অনুযায়ী গেরুয়া পোশাক পরা, কপালে তিলক কাটার কি স্বাধীনতা নেই এই দেশে? সাংবাদিকের অধিকার আছে বলেই কি হিন্দুর ধর্মীয় বিশ্বাস নিয়ে কি আঙ্গুল তুলবেন, এমনই ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন তাঁরা। অনেকে আবার বলছেন একজন মুসলিম ব্যক্তিকে ঠিক একইরকম কথা বলতে পারতেন ওই সাংবাদিক? প্রশ্ন তুলেছেন তাঁরা। 

We are not big media organisation. Your support is what keeps us moving. Don't hesitate to contribute because, work, for society needs society's support. Jai Hind.