মধ্য প্রদেশ: ভিনধর্মী যুবতীর সঙ্গে প্রেমের জের, নৃশংসভাবে খুন ধর্মেন্দ্র সিং

0
321

চার মাস পুরোনো খুনের মামলার কিনারা করলো ভোপাল পুলিশ। সেইসঙ্গে খুনি রইস খানকেও গতকাল গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। প্রসঙ্গত, গত ২৯ শে আগস্ট ধর্মেন্দ্র সিং-এর মৃতদেহ উদ্ধার করে ভোপাল পুলিশ।

মৃতদেহ উদ্ধারের পর পুলিশের মনে হয়েছে বাজ পড়ে মৃত্যু হয়েছে ধর্মেন্দ্র সিং-এর। সেইসময় যেহেতু বর্ষাকাল ছিল এবং বাজ পড়ে একাধিক মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছিল, ফলে পুলিশের এমনই ধারণা হয়েছিল। কিন্তু ধর্মেন্দ্রর হাতে পোড়া দাগ এবং তাঁর পরিবারের সঙ্গে কথা বলে তদন্তকারীদের মনে খটকা লাগে। তাঁরা একপ্রকার নিশ্চিত হন যে বাজ পড়ে মৃত্যু হয়নি ধর্মেন্দ্র সিং-এর।

মৃত ধর্মেন্দ্রর পরিবারের সঙ্গে কথা বলে তদন্তকারীরা জানতে পারেন যে রইস খানের মেয়ের সঙ্গে প্রেম করতো সে। রইস খান একাধিকবার হুমকি, ধমকি দিলেও সেসব উপেক্ষা করে প্রেমিকার সঙ্গে দেখা করতে যেতেন তিনি। তাছাড়া, ধর্মেন্দ্রর হাত পোড়া ছিল, যা বাজ পড়ে মৃত্যুর ঘটনায় অস্বাভাবিক। আর তারপরেই রইস খানকে আটক করে জেরা শুরু করেন তদন্তকারীরা। জেরায় রইস খান খুনের কথা স্বীকার করেন।

রইস খান জানান যে তাঁর মেয়ের সঙ্গে প্রেম করতে নিষেধ করেছিলেন ধর্মেন্দ্রকে। কিন্তু সে নিষেধ মানেনি। তাই ধর্মেন্দ্রকে খুনের পরিকল্পনা করে সে। সেইসময় বর্ষা কাল ছিল এবং বাজ পড়ে মৃত্যুর ঘটনা প্রচুর ঘটেছিল। তাই সে ইলেকট্রিক শক দিয়ে খুনের পরিকল্পনা করে। পরিকল্পনা অনুযায়ী, ধর্মেন্দ্রকে ধরে তাঁর হাতে ইলেকট্রিক তার জড়িয়ে দেয়। তারপর ধর্মেন্দ্রর মৃত্যু হলে তাঁর দেহ ফেলে দিয়ে আসে জমির মধ্যে। ফলে সবাই ভেবেছিল যে, বাজ পড়ে মৃত্যু হয়েছে তাঁর। কিন্তু ইলেকট্রিক শকে হাত পুড়ে যায় ধর্মেন্দ্রর। আর তা-ই ধরিয়ে দিলো রইস খানকে।

We are not big media organisation. Your support is what keeps us moving. Don't hesitate to contribute because, work, for society needs society's support. Jai Hind.