তুরস্কের কট্টরপন্থী ইসলামিক সংগঠনের সঙ্গে PFI-এর যোগ, সামনে এলো ছবি

0
615

সুইডেনের গবেষণা সংস্থা ‛নর্ডিক মনিটর’(Nordic Monitor) তুরস্কের কট্টরপন্থী ইসলামিক জঙ্গি সংগঠন IHH(İnsan Hak ve Hürriyetleri ve İnsani Yardım Vakfı)-এর সঙ্গে ভারতের ইসলামিক কট্টরপন্থী সংগঠন PFI-এর সঙ্গে যোগ রয়েছে বলে দাবি করেছে। সংস্থাটির দাবি, ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনের সাত মাস পূর্বে ২০শে অক্টোবর, ২০১৮ তারিখে দুই সংগঠনের নেতাদের বিশেষ বৈঠক হয়েছিল। সেই বৈঠকের ছবিও প্রকাশ করেছে সুইডেনের সংস্থাটি। উল্লেখ্য, IHH-এর সঙ্গে আল কায়দার যোগ রয়েছে এবং সংগঠনটি আল কায়দাকে অর্থ সাহায্য করে থাকে।

এই বৈঠকে ভারতের PFI-এর রাজনীতি দল SDPI-এর নেতা তসলিম রেহমানি এবং কোষাধ্যক্ষ আর কোয়া উপস্থিত ছিলেন। IHH-এর পক্ষ থেকে সেই সংগঠনের দুই শীর্ষ নেতৃত্ব উপস্থিত ছিলেন। সেই ছবি সামনে আসার পরই PFI এবং SDPI-এর বিরুদ্ধে দেশজুড়ে তদন্তের দাবি উঠেছে। কারণ দেশজুড়ে CAA বিরোধী হিংসায় অর্থ জুগিয়েছিল PFI, এমন তথ্য সামনে এসেছিল আগেই। তাছাড়া, দেশের একাধিক স্থানে দাঙ্গায় মদত দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে কট্টরপন্থী ইসলামিক সংগঠন পপুলার ফ্রন্ট অফ ইন্ডিয়ার বিরুদ্ধে। ফলে অনেকের অভিযোগ, PFI তুরস্কের সংগঠন IHH-এর কাছ থেকেও অর্থ সাহায্য পেয়েছে। এমনকি দিল্লীর হিন্দু বিরোধী দাঙ্গায় অর্থের যোগান দিয়েছিল PFI। ফলে এই নেতাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি উঠেছে।

PFI(পপুলার ফ্রন্ট অফ ইন্ডিয়া) জন্মলগ্ন থেকেই কট্টরপন্থী ইসলামিক সংগঠন হিসেবে পরিচিত। তাদের একটি রাজনৈতিক দলও রয়েছে। এদের বিরুদ্ধে অভিযোগের তালিকা অনেক লম্বা। দিল্লীর হিন্দু বিরোধী দাঙ্গা, দেশজুড়ে CAA বিরোধী হিংসা ছড়ানো, লখনৌ শহরের দাঙ্গা, বেঙ্গালুরু দাঙ্গা, হাথরাস কাণ্ডে দাঙ্গা লাগানোর চেষ্টা এবং দেশজুড়ে লাভ জিহাদে মদত দেওয়ার মতো গুরুতর অভিযোগ রয়েছে এদের বিরুদ্ধে। প্রতি ঘটনায় বিশাল পরিমান অর্থ জুগিয়েছিল PFI। একাধিক ঘটনায় PFI সদস্যদের গ্রেপ্তারও করা হয়েছে। এবার IHH-এর নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের ছবি সামনে আসায় আইনি পদক্ষেপের দাবি উঠেছে।

We are not big media organisation. Your support is what keeps us moving. Don't hesitate to contribute because, work, for society needs society's support. Jai Hind.