কেন আমি নেহেরু-গান্ধী কংগ্রেসকে ঘৃণা করি- দ্বিতীয় পর্ব

© বিরিঞ্চি বন্দ্যোপাধ্যায়

ঘৃণার অন্যতম কারণ হল এরা ভারতের ইতিহাস বিকৃত করেছে আমাদের জানতে দেয়নি আমাদের সভ্যতা সংস্কৃতিকে। যে বেদ হল পৃথিবীর সবথেকে প্রাচীন সাহিত্য এবং ভারতের ইতিহাসের প্রাচীন দলিল যা চর্চা করলে প্রচলিত সব ভ্রান্ত ধারণা ও বিভেদ মিটে গিয়ে হিন্দুরা ঐক্যবদ্ধ হতে সক্ষম হতো সেই বেদকে অচ্ছুৎ করে রেখে দিয়েছে।

যার ফলে আমারা নিজেদের প্রাচীন সংস্কৃতি সম্মন্ধে কিছুই জানিনা বদলে কিছু পৌরাণিক কেন্দ্রিক ভ্রান্ত ধারণা প্রতিপালন করে চলেছি নিজেদের ধর্ম বিশ্বাস আর সামাজিক জীবনে যা অর্ধসত্য বা সত্য নয়।

সেই সূত্র ধরেই কাল থেকে দেখতে পাচ্ছি অসুর নিয়ে একটা ভ্রান্ত প্রচার চলছে তাই এই লেখাটা দিলাম।

অসুর শব্দটি উচ্চারণের সঙ্গে সঙ্গে আমাদের চোখের সামনে উদ্ভাসিত হয় এক অতি অদ্ভুত, বর্বর, অত্যাচারী প্রাণীর প্রতিমূর্তি।

অসুরের সন্ধানে

বিশেষ করে ভারতীয় পুরাণে অসুর নিয়ে নানান কল্পকাহিনী আছে, দেবাসুরের যুদ্ধ, দেবতাদের হাতে নানান অসুর নিধন, দেবীদুর্গার হাতে বিভিন্ন অসুর নিধনের কাহানী পুরাণের অন্যতম উপজীব্য বিষয়।

পুরাণ অনুসারে অসুরা অন্ধকারে, অত্যাচারে জাজ্বল্যমান নিদর্শন, যাদের হাতে মানুষ, দেবতা সবাই লাঞ্ছিত, নিপীড়িত। তবে দেখা যায় অসুররা যতই দেবতা ও মনুষ্য বিরোধী হোক না কেন তারাও পৌরাণিক ত্রিদেবেরই উপাসক।

এইবার দেখাযাক বৈদিক সাহিত্যের দৃষ্টিভঙ্গিতে অসুর শব্দের প্রকৃত অর্থ। যা সময়ে অন্তরে নিন্দা সূচক শব্দে পরিণত হয়েছে, তা কিন্তু সুদূর অতীতকালে সমাদৃত ছিল আমাদের সভ্যতায়।

অসুর শব্দটি এমন একটি শব্দ যা সময়ের অন্তরে বন্দিত থেকে নিন্দিত হয়েছে। এই লেখাতে সেই বিষয়েই আলোকপাত করবার চেষ্টা করবো।

বেদের প্রথম ভাগে যেই শব্দ প্রশংসা সূচক ছিল তা কি কারণে পরবর্তী সময়ে নিন্দিত হল সেটা চিন্তার বিষয়। এই আলোচনা শুরুর আগে আমাদের জানা উচিৎ বেদোক্ত দেব ও অসুর কারা?

শতপথ ব্রাহ্মণ বলছে “যজ্ঞেন বৈ দেবাঃ” যারা যজ্ঞ করতেন তারা দেব।দেবতা কথার অর্থ বিদ্বান ব্যক্তি, বিদ্যাংসো হি দেবাঃ(শতপথ ব্রাহ্মণ), বিদ্বান তিন প্রকার দেব,ঋষি,পিতৃ।

তেমনি অসুর শব্দের অর্থ বীর,যোদ্ধা,জাজ্বল্যমান, অসুর কোন নিন্দা সূচক শব্দ না ঋক্‌বেদে বহুবার প্রশংসা সূচক অভিবাদন স্বরূপ ইন্দ্র,সূর্য, বরুণ কে অসুর সম্ভাষণ করা হয়েছে। ভারতীয় সংস্কৃতিতে যে দেবাসুরের সংগ্রামের কথা পাই, সেটা বাস্তবে শক্তির সঙ্গে প্রজ্ঞার লড়াই ছিল, যেখানে বিদ্বানরা জয় লাভ করে ছিল, আর অসুররা পরাজিত হয়ে আর্য্যবর্ত ত্যাগ করে পশ্চিমে আ্যসিরিয় সভ্যতা স্থাপন করেন। কিন্তু আজ ইতিহাস বিকৃতির ফলে দেবতা বলতে অপার্থিব মহান শক্ত ও অসুর বলতে অদ্ভুত অত্যাচারী কিছু বোঝায়।

আসলে দেব বা অসুররা আমাদেরই মত মানুষ। এরা দুইদলই ভারতেরই দুইটি সুপ্রাচীন আর্য জাতি।তবে একদল যাজ্ঞিক, আর অন্যদল যজ্ঞ রহিত। বেদে ১০৫ বার অসুর শব্দের উল্লেখ আছে।তার মধ্যে ৯০ বারই প্রশংসা সূচক। যেমন অসুরঃ অসু ক্ষেপণে শত্রুণ্ ইত্যসুরঃ। যারা শত্রুদের উপর ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপে পটু তারা অসুর। এবং অসুন্ প্রাণান রাতি দদাতি ইত্যসুরঃ।যারা প্রাণদান করে, যাদের মধ্যে দুর্দম প্রাণশক্তির প্রকাশ দেখা যায়, সেই সমস্ত শক্তিশালী বীররাই অসুরপদবাচ্য।

যাস্ক তার নিঘণ্টু ও নিরুক্ত গ্রন্থে(৩/৮) বলেছেন যে অস্ ধাতু থেকে অসুর শব্দটি নিষ্পন্ন হয়েছে, যাস্কের মতে অসু শব্দ অর্থ শ্বাসবায়ু। বৈদিক যুগের প্রথম দিকে দেবশক্তিকেও অসুর উপাধিতে ভূষিত করা হয়েছে দেব শক্তির মধ্যে যারা বীর যেমন—- রুদ্র,মরুৎ,বরুন, ত্বষ্টা,অগ্নি, বায়ু, পুষা, সবিতা, সূর্য, আকাশ,ইন্দ্র এঁদের বৈদিক ঋষিরা অসুর বলতেন।
১)মরুৎ( ঋগ্বেদ ৬৪/২)
২)রুদ্র(ঋগ্বেদ ৫/৪২/২১)
৩)ইন্দ্র(ঋগ্বেদ ৫৪/৩)
৪)ররুণ(ঋগ্বেদ ২/২৭/১০)
৫)অগ্নি(ঋগ্বেদ ৫/১২/১)

প্রথম প্রথম দেব ও অসুরের মধ্যে খুব সৌভ্রাতৃত্ব ছিল।কিন্তু পরে ব্যক্তিত্ব জনিত মতপার্থক্য হতে শুরু করে, এই বিরোধ ছিল মস্তিষ্ক আর পেশীশক্তি মধ্যে। উপনিষদে উল্লেখ্য আছে যে সভ্যতার মধ্যভাগে দেবাসুরের যুদ্ধের কথা আর সেই যুদ্ধ পরমব্রহ্ম দেবানুকূলে ছিলেন তাই দেবতাদের জয় হয়েছিল।দেবতাদের নেতা ইন্দ্র বৃত্রাসুরকে পরাস্ত করেন, শত্রুতা সুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে “অসুর” শব্দটি খারাপ অর্থে ব্যবহৃত হতে থাকলো, যেমন অসুরাঃ রাক্ষসাঃ দেবনিন্দকাঃ, ব্রাহ্মণে অসুরদের বৃত্র হিসাবে উপস্থাপ করল, বৃত্র মানে আবরণ, যা অন্ধকারের প্রতীক।

বৈদিক যুগের শেষভাগে যজ্ঞবাদী আর্যদের সঙ্গে অসুরদের বিরোধ তুঙ্গে ওঠে। আর্য অসুরজাতির অধিকাংশ ভারত ত্যাগ করে পারস্য ও তুর্কীস্থানে গিয়ে বাস করতে থাকেন।বাকীরা যারা রইলেন, তাঁরা প্রয়াগ, ছোটনাগপুর, তিব্বত ও কামরূপের দিকে চলে যান।

অসুরদের যে বড় দলটি ভারতের বাইরে চলে গেছিল, আজ থেকে ৫০০০ হাজার বছর আগেই তারাই ব্যাবিলনে এক সাম্রাজ্য স্থাপন করেন। এই সাম্রাজ্যের নাম অসুর বা আসীরিয়া।টাইগ্রীস নদীর উপকূলে এদের যে রাজধানী স্থাপিত হয় তার নাম অস্সুর।আসীরিয়দের ধর্মগ্রন্থ আবেস্তাতে অহুর শব্দটি অসুর শব্দের অপভ্রংশ, অহুর মাজদা এই সভ্যতার পরমেশ্বরের নাম। আসীরিয় সভ্যতার রাজরাজাদের নাম গুলির মধ্যেও অসুর শব্দটি পাওয়া যায়, যেমন অসুর-সিরি-পাল(Asurnasipal),অসুর-বনিপাল (Asurbanipal)।মোট কথা যাদের বাসস্থানের নাম আসিরীয় বা অসুর, রাজাদের নাম অসুর উপাধিযুক্ত এবং উপাস্য দেবতার নাম অসরি বা অস্সুর তারাই অসুর নামে অভিহিত।

ভারতীয় অসুরগণ দুর্গ নির্মাণে পটু ছিলেন।বেদে তার বহু প্রমাণ পাওয়া যায়।শম্বর অসুরের ছিল ৯০ টি দুর্গ(ঋ১/১৩০/৭)।বর্চী অসুরের লক্ষ লক্ষ যোদ্ধা ছিল, তিনি নিজেও ছিলেন দুর্দান্ত বীর (ঋ ১০/১৫১/৩। পিপরু অসুরের বড় কেল্লা ছিল।ঋগ্বেদের দশম মণ্ডলে দেখি ইন্দ্র পিপরুর কেল্লা নষ্ট করে দিচ্ছেন(ঋ ১০/১৩৮/৩)।

এদিকে আসিরীয় অসুরদের যে পরিচয় পাই, তাতে তারাও যে যুদ্ধবিদ্যায় পটু ছিলেন তারও ইতিহাস সম্মত প্রমাণ আছে। তাদেরও দুর্ভেদ্য দুর্গ ছিল।কালক্রমে বাহুবলে এশিয়া মাইনরে হতে ককেশাস পর্বত পর্যন্ত নিজেদের অধিকার বিস্তার করেছিলেন।
ভারতীয় অসুরজাতি এবং আসিরীয় অসুরজাতি যে একই জাতি তা বলবার আরও কিছু কারণ আছে।

আসিরীয়রা দুরকম শ্মশান তৈরী করতেন।একটি ছিল তাদের তাবুর আকৃতি আর একটি ডিম্বাকৃতি। শতপথ ব্রাহ্মণে দেখি দেবতাদের শ্মশান ছিল চতুবস্রাকার আর অসুরদের শ্মশান ছিল গোলাকার(১৩/৪/১/৫)

আসীরীয় অসুররা মার্ডুকের প্রতীক প্রতীক পূজা করতেন। এই প্রতীক বাণাকৃতি। storm god এর পূজাও এদের মধ্যে প্রচলিত ছিল।এদিকে ভারতীয় অসুররাও ছিলেন রুদ্রোপাসক।বেদে রুদ্রও storm god রূপে চিত্রিত।

আর এই দুই জাতীই ছিল মায়ার উপাসক।

অসুররা ছিল ভারতেরই একটি প্রাচীন জাতি,ভারতের আর্য জাতির বংশধর, তারা আমাদের মত মনুষ্যদেহধারী এবং আসিরীয়রাই সেই অসুরজাতির বংশধর।

G.SMITH এর লেখা ১৮৮৩ বই Assyrian Discoveries বইটা দেখতে পারেন বিষদ ভাবে জানাবার জন্য।

(এই লেখার তথ্য সূত্র বৈদিক ভারত, অমূল্যচরণ বিদ্যাভূষণ রচনা থেকে)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!