দেশি গরুর দুগ্ধজাত ঘি অনেক বেশি স্বাস্থ্যকর

0
56

© শ্রী সূর্যশেখর হালদার

দেশি গরুর দুধ এবং দুগ্ধজাত নানা দ্রব্য নিয়ে ইদানিং সারা পৃথিবী জুড়েই আলোচনা চলছে : গবেষণাও চলছে। একটি গবেষণায় জানা গেছে দেশি গরুর দুগ্ধজাত ঘি খাঁটি এবং এতে রয়েছে A2 প্রোটিন যেটার কারণে অন্য বাজারচলতি ঘি এর থেকে এর গ্রহণযোগ্যতা অনেক বেশি । দেশি গরুর দুগ্ধজাত ঘি এর দামও অন্যসব বাজারচলতি ঘিয়ের থেকে বেশি। তাহলে এটাই কি কেনা উচিত?

গরুর দুধে দুইপ্রকার প্রোটিন থাকে A1 Beta Casein আর A2 Beta Casein। কিছু আধুনিক গবেষণা প্রমাণ করেছে A2 প্রোটিন A1 প্রোটিনের থেকে অনেক বেশি স্বাস্থ্যকর। আর মনে করা হয় দেশি গরুর দুধে অনেক বেশি A2 প্রোটিন আছে। ভারতে কিন্তু অনেক আগে থেকেই দেশি গরুর দুধ এবং এর দুগ্ধজাত ঘিয়ের কথা সবাই জানে। অন্যদিকে A2 দুধ কে অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড , চীন ,ইউনাইটেড স্টেটস, ইউনাইটেড কিংডম প্রভৃতি দেশে জনপ্রিয় করে A2 Milk Company । এই সংস্থা দাবি করে গরুর দুধে যে A1 প্রোটিন পাওয়া যায় ,তা ক্ষতিকর। তবে European Food Safety Authority একটি সমালোচনামূলক নিবন্ধে দেখায় যে
বায়োঅ্যাক্টিভ পেপটাইড (Bioactive peptide) যা A1 এবং A2 উভয় প্রকার প্রোটিনসমৃদ্ধ দুধেই থাকে সেটা শরীরের ওপর কোন খারাপ প্রভাব ফেলে না।

তবে এটা মানতেই হবে যে দেশী গরুর দুধ থেকে উৎপন্ন ঘি অন্য ঘি এর থেকে অনেক বেশি স্বাস্থ্যকর। দেশি গরুর দুধ অনেক বেশি ঘন এবং এর থেকে ঘি হয় পরিমাণে অনেক বেশি। যেহেতু A2 প্রোটিন সমৃদ্ধ দুধ থেকে তৈরি, তাই তার স্বাদ বেশি ভালো । জিনিসটিও অনেক বেশি স্বাস্থ্যকর এবং হজমের জন্য বেশ উপযোগী । দেশি গরুর দুধের গঠনবিন্যাসে দানা থাকে বেশি। তাই এর থেকে ঘি তৈরির জন্য দুধ থেকে প্রাপ্ত মাখনকে কম তাপে অনেকক্ষণ উত্তপ্ত করতে হয়।

শ্রীমতি ডলি কুমার, Gaia এর প্রতিষ্ঠাতা ও অধ্যক্ষ বলেন,
” অনেক বেশি পরিমাণ ঘি তৈরির জন্য উৎপাদনকারীরা সাধারণতঃ অনেক অসাধু উপায় অবলম্বন করেন, যেমন গরুকে হরমোন ইনজেকশন দেওয়া যাতে করে গরু অনেক বেশি দুধ দিতে পারে; কিম্বা ঘি এর পরিমাণ বৃদ্ধির জন্য তাতে ভেজাল মেশানো। এছাড়াও দেশি ঘি গরুর A2 প্রোটিন সমৃদ্ধ দুধ থেকে উৎপন্ন। তার অনেক উপকারিতা রয়েছে যা অন্য ঘি তে পাওয়া যায় না।”

A2 প্রোটিন সমৃদ্ধ দেশি গরুর দুগ্ধজাত ঘি তে রয়েছে অ্যামাইনো এসিড যা হজমে সাহায্য করে। এটা অনেক বেশি পুষ্টিকরও বটে। যাদের দুগ্ধজাত দ্রব্য হজমের সমস্যা অথবা বদহজম, ডায়রিয়া, কিংবা কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা আছে, তারাও এই ঘি সহ্য করতে পারে।

দেশি ঘি খাঁটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এরও উৎস। এছাড়াও ভিটামিন A, প্রচুর উৎকৃষ্টমানের প্রোটিন এবং বিবিধ ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র পুষ্টিকর দ্রব্য যা শরীরের প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে, এই ঘি এর মধ্যে পাওয়া যায়।
আয়ুর্বেদ শরীর রক্ষায় দেশি গরুর দুগ্ধজাত ঘি এর গুরুত্ব স্বীকার করে।

এই প্রকার ঘি তে প্রচুর পরিমাণে ওমেগা-3 ফ্যাটি এসিডও পাওয়া যায়। এটা যাদের শরীরে কার্ডিওভাসকুলার সমস্যা রয়েছে , তাদের ক্ষেত্রে উপকারী। A2 প্রোটিনে সমৃদ্ধ হওয়ার জন্য দেশি গরুর দুগ্ধজাত ঘি HDL অর্থাৎ শরীরের ভালো কোলেস্টেরল তৈরিতে সাহায্য করে এবং রক্তে বাজে কোলেস্টেরলের পরিমাণ কমাতে লড়াই করে। এতে প্রচুর প্রোলাইন থাকার কারণেও হৃদয়ের পেশীকে মজবুত করতে সাহায্য করে।

We are not big media organisation. Your support is what keeps us moving. Don't hesitate to contribute because, work, for society needs society's support. Jai Hind.

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here