৫০০ বছর অযোধ্যার সূর্যবংশীয় ক্ষত্রিয়রা পাগড়ি ও চামড়ার জুতো পরেননি। কেন জানেন?

0
80

@ Hindu Voice Team

আগামী ৫ই আগস্ট সারা বিশ্বের হিন্দুদের কাছে এক পবিত্র দিন। মুসলিম শাসকের দ্বারা ধ্বংস হওয়া শ্রী রাম মন্দিরের পুনর্নির্মাণ কাজ শুরু হতে চলেছে শুভ ভূমি পূজনের মধ্য দিয়ে। বস্তুত এর মধ্য দিয়ে এক নতুন যুগের সূচনা হতে চলেছে- হিন্দু স্বাভিমানের পুনর্জাগরণ। ইতিহাসের পাতায় স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে এই দিনটি। তার সঙ্গে এই মন্দির নির্মাণের জন্য কত রক্ত ঝরছে, কত প্রাণ বলিদান হয়েছে, তাও লেখা থাকবে স্বর্ণাক্ষরে। সেইরকম একটি ইতিহাস অযোধ্যার সূর্যবংশী ক্ষত্রিয়দের। 

সূর্যবংশী ক্ষত্রিয়রা ভগবান শ্রী রামের বংশধর। বর্তমানে তাঁরা অযোধ্যায় ও আশেপাশের গ্রামে বসবাস করেন। মুঘল শাসনে শ্রী রাম মন্দির ধ্বংস করে দেওয়া হয়। তারপর সেই পবিত্র ভূমিতে নির্মাণ করা হয় বাবরি মসজিদ। সেই সময় সূর্যবংশীয় ক্ষত্রিয়রা মুঘল সেনাদের বিরুদ্ধে লড়াই করলেও মুঘলদের কাছে পরাজিত হন। পরে  সূর্যবংশীয় ক্ষত্রিয় রাজা গজ সিং ও তাঁর ক্ষত্রিয় সেনা শ্রী রাম জন্মভূমি উদ্ধার করার লক্ষ্যে মুঘলদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেন। তুমুল লড়াইয়ের পর পরাজিত হন ক্ষত্রিয় সেনারা। তাদেরকে অযোধ্যার কেন্দ্রস্থল থেকে তাড়িয়ে দেওয়া মুঘল সেনারা। তখন তাঁরা প্রতিজ্ঞা করেছিলেন, যতদিন না শ্রী রাম মন্দিরের পুনর্নির্মাণ হবে, ততদিন তাঁরা পাগড়ি পরবেন না। চামড়ার জুতোও ব্যবহার করবেন না। সেই প্রতিজ্ঞা প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে রক্ষা করে চলেছেন তাঁরা।

তারপর কেটে গিয়েছে কয়েকশ বছর। তাঁরা কোনোদিন পাগড়ী পরেননি, এমনকি বাড়ির বিবাহ অনুষ্ঠানেও নয়। কিন্তু সুপ্রিম কোর্টের রায়ের পরে শ্রী রাম মন্দিরের নির্মাণকাজ শুরু হতে চলেছে। আবার সেই ক্ষত্রিয়রা পাগড়ী পরবেন। ইতিমধ্যেই এক বিরাট অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে পাগড়ী পরতে শুরু করেছেন তাঁরা। আজ এই নতুন যুগের সূচনায় তাদের সেই ত্যাগ ও প্রতিজ্ঞাকে প্রনাম জানানোর দিন। 

We are not big media organisation. Your support is what keeps us moving. Don't hesitate to contribute because, work, for society needs society's support. Jai Hind.