শিবাজি মহারাজার জীবনী ও বীরত্বগাথা- (২০)

0
219

© অরিন্দম পাল

পর্ব-২০

সবার উপরে দেশমাতা

…এই সময় শিবাজীর অত্যন্ত বিশ্বস্ত সহকারী পুরন্দর দুর্গের ইনামদার মহাদাজী নীলকন্ঠরাও সরনাইকের আকস্মিক মৃত‍্যু সংবাদে শিবাজী অত্যন্ত মর্মাহত হয়েছিলেন । শাহাজীরাজা ও শিবাজী, উভয়ের প্রতি তাঁর শ্রদ্ধা ও ভালবাসা ছিল অসীম। ফত্তেখান যখন আক্রমণ করতে এসেছিল, তখন তিনি শিবাজীকে তাঁর সৈন্যবাহিনীসহ পুরন্দর দুর্গে প্রবেশ করার অনুমতি দিয়েছিলেন ― নিজের জীবন ও চাকুরীর বিরাট ঝুঁকি নিয়ে, কারণ পুরন্দর ছিল আদিলশাহীর দখলে, যার সর্দার ফত্তেখান স্বয়ং, শিবাজীর বিরুদ্ধে আক্রমণ চালাতে এসেছিল। কিন্তু শিবাজীর মহৎ উদ্দেশ্য ― অর্থাৎ হিন্দু স্বরাজের পুনঃপ্রতিষ্ঠা এবং সেই উদ্দেশ্য-সাধনের জন্য তাঁর দৃঢ়-সংকল্প, নিষ্ঠা, পরাক্রম, নেতৃত্ব, সূচাগ্র-বুদ্ধি, সংগঠন ক্ষমতা, কর্মকুশলতা, অখন্ড নিরলস পরিশ্রম অসামান্য গুণাবলী মহাদাজীকে মুগ্ধ করেছিল‌। সেই বৃদ্ধ মহাদাজীর মৃত্যুতে তিনি যে আত্মীয় বিয়োগের বেদনা অনুভব করবেন, সে কথা বলাই বাহুল্য। কর্নাটকের শাহাজীরাজার কাছেও এই দুঃসংবাদ পৌঁছল। লোকান্তরিত বৃদ্ধের চার পুত্রের কাছে সমবেদনা জানিয়ে তিনি পত্র পাঠালেন।
কিন্তু বৃদ্ধের মৃত্যুর সঙ্গে সঙ্গে চার ভাইয়ের মধ্যে প্রচন্ড বিবাদ শুরু হল― প্রত্যেকেই চাইছিল সেই হবে পুরন্দরের সরনাইক। সেই খবর পেয়ে শিবাজী মহারাজ তাড়াতাড়ি পুরন্দর দূর্গে গিয়ে উপস্থিত হলেন এবং তাঁর চার পুত্রকে দুর্গের মধ্যে ডেকে পাঠালেন । তিনি তাদের অনেক বোঝালেন, ঝগড়া না করে শান্তিতে, মিলে-মিশে থাকতে, নয়তো এই ঝগড়ার সুযোগ নিয়ে বাদশাহের কোন সর্দার এসে দুর্গ দখল করে নিতে পারে। কিন্তু প্রত্যেক ভাই চাইছে দুর্গের অধিপতি হতে। ওদের বুঝিয়ে কোনো ফল হল না। অতএব, দেশের তথা স্বরাজের স্বার্থে শিবাজীরাজাকে কঠোর হতে হল। তিনি মাবল বীরদের দুর্গের চারিদিকে পাহারায় নিযুক্ত করলেন এবং চার ভাইকে গ্রেপ্তারের আদেশ দিলেন। মহাদাজী পন্তের সঙ্গে শিবাজীর সম্পর্ক ছিল পিতা-পুত্রের মত। তাঁর পুত্রদের তিনি ভাইয়ের মত‌ই দেখতেন। সেই কারণে তিনি চাইছিলেন যে তারা মিলে-মিশে দুর্গ তত্ত্বাবধানের দায়িত্ব নিক ― এটাই ছিল তাঁর আন্তরিক অভিপ্রায়। কিন্তু এদের ব্যক্তিগত স্বার্থসর্বস্ব মতিগতিকে প্রশ্রয় দিলে স্বরাজের প্রচন্ড ক্ষতি হবে বুঝতে পেরেই তাঁকে এ রকম কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হয়েছিল । পুরন্দর দুর্গকে তিনি পুরোপুরি নিজের দখলে নিলেন এবং তার বিশ্বস্ত সহকর্মী নেতাজী পালকরকে সেখানকার নতুন দুর্গ রক্ষক নিযুক্ত করলেন। সেইসঙ্গে মহাদাজী পন্তের পুত্রদের সসম্মানে মুক্তি দিয়ে তাদের স্বরাজের কাজে নিযুক্ত করেছিলেন ।

(ক্রমশঃ)

We are not big media organisation. Your support is what keeps us moving. Don't hesitate to contribute because, work, for society needs society's support. Jai Hind.