বঙ্গ ও বাঙ্গালী জীবনে প্রাসঙ্গিকতাঃ শেখ মুজিবর রহমান বনাম রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

0
273

© প্রীতম চট্টোপাধ্যায়

পাকিস্তানে হিন্দুদের উপরে চরম অত্যাচার ও নির্যাতন দেখে, সেই পাকিস্তান ভেঙ্গে বাঙ্গালী জাতীয়তাবাদের ভিত্তিতে স্বাধীন পূর্ব বাংলা গড়ার স্বপ্ন দেখেন বহু মানুষ। তাঁরা ভেবেছিলেন, বাঙ্গালী জাতীয়তাবাদের ভিত্তিতে পূর্ববঙ্গ স্বাধীন হলে সেখানে ইসলামিক জাতীয়তাবাদ থাকবে না। হিন্দু মুসলিম সম-অধিকার নিয়ে বাস করতে পারবে।

কিন্তু যুদ্ধের মাধ্যমে পাকিস্তান ভাগ হলেও বাঙ্গালী জাতীয়তাবাদের ভিত্তিতে পূর্ব বাংলা স্বাধীন হলো না। জন্ম নিল ইসলামবাদী বাংলাদেশ। বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা না করে মুজিবের স্বেচ্ছায় গ্রেফতার বরণ ও যুদ্ধকালে বাংলাদেশ সরকার সহ নেতাদের আচরণ দেখে বিচক্ষণ মানুষ মাত্রেই বুঝেছিলেন, তাঁদের সব প্রচেষ্টা ব্যর্থ।

তাই যুদ্ধ শেষ হওয়ার আগেই চোদ্দো জন হিন্দু নেতা একত্রে বসে নতুন করে স্বাধীনতা সংগ্রামের সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হন। পরে Law Continuation Order of 1971 জারি করে মুজিব বুঝিয়ে দিলেন যে তাঁর সরকার পাকিস্তানের Successor সরকার।

এর ফলে স্বীকৃতি পেল ইসলামিক জাতীয়তাবাদ। মুছে গেল বাঙ্গালী মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস।

অপরদিকে আরেকজন মানুষের কথা কল্পনা করুন পাঠক।

রবীন্দ্রনাথ কেন প্রাসঙ্গিক? তিনি দুটি সম্পন্ন ঐতিহ্যের ভিতরে মিলন ঘটিয়েছিলেন।

১) ভারতবর্ষের ঔপনিষদিক ঐতিহ্য। ঋষিদের মতো তিনি অনুভব করেছিলেন যে বিশ্বজগৎ কোনো কল্যাণময় উপস্থিতির বিচিত্র বহিঃপ্রকাশ মাত্র। সুতরাং যে ফুল না ফুটে ঝড়ে যায়, সে-ও নাকি ব্যর্থ নয়। তাঁর কবিতা, গান ও নাটকের একটি বড় অংশ এই বিশ্বাসের দ্বারা উদ্বুদ্ধ। তাঁর গল্প-উপন্যাস-প্রবন্ধের মধ্যেও এই ঔপনিষদিক ঐতিহ্যের ফলপ্রসূ প্রভাব লক্ষণীয়।

২) রবি ঠাকুর ছিলেন রেনেসাঁ-উত্তর পশ্চিমের মানবতন্ত্রী ঐতিহ্যের অন্যতম সফল ধারক।

রবিকল্পনায়-সৃষ্টিতে উপরোক্ত দুটি ধারা সম্পৃক্ত হয়েছিল।

বিবিসির সেরা বাঙ্গালী তবু একজন হয়ে যান অচিরে। অন্যজন হন না।

নীরব বিস্ময়ে হিসেব রাখেন মহাকাল।

We are not big media organisation. Your support is what keeps us moving. Don't hesitate to contribute because, work, for society needs society's support. Jai Hind.