বাংলাদেশের বাঁশখালী গণহত্যার বিচার আজও হয়নি

0
478

বাংলাদেশের ইতিহাসে অন্যতম ন্যাক্কারজনক ও নৃশংস ঘটনা বিএনপি জামাত জোট সরকারের আমলে ঘটে যাওয়া বাঁশখালীর  ১১ জন হিন্দুকে আগুনে পুড়িয়ে  হত্যা মামলার বিচার  হয়নি দীর্ঘ  ১৬ বছরেও…!!! ২০০৩ সালের ১৮ নভেম্বর তারিখে  চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার সাধনপুর শীলপাড়ায় ঘটে যাওয়া ভয়াবহ ওই ঘটনায় চার দিনের শিশু কার্তিক শীল সহ ১১ জনকে পুড়িয়ে হত্যা করেছিল তৎকালীন  বিএনপির আশ্রয় প্রশ্রয়ে লালিত সন্ত্রাসীরা। এই হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হওয়ার পর বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের হাইকমিশন ও বিভিন্ন রাজনৈতিক দল প্রতিবাদ ও নিন্দা জানালেও এখন আর কেউ খবর রাখে না। অভিযোগ দায়েরকারী  এবং সেই পরিবারের একমাত্র জীবিত সদস্য ডাঃ বিমল শীল আজও বিচারের আশায় আদালতের দুয়ারে নিরন্তর  ছুটে চলেছেন।

 সেইদিন রাতে বাঁশখালীতে পুড়িয়ে মারা হয় বিমল শীলের বাবা তেজেন্দ্র লাল শীলকে (৭০)। একই ঘটনায় মারা যান বিমলের মা বকুল শীল (৬০), ভাই অনিল শীল (৪০), অনিলের স্ত্রী স্মৃতি শীল (৩২), অনিলের তিন সন্তান রুমি শীল (১২), সোনিয়া শীল (৭) ও চার দিন বয়সী কার্তিক শীল। বিমল শীলের কাকাতো বোন বাবুটি শীল (২৫), প্রসাদি শীল (১৭), এনি শীল (৭) এবং কক্সবাজার থেকে বেড়াতে আসা তাঁর মেসো দেবেন্দ্র শীল (৭২)। গ্রামীণ  চিকিৎসক বিমল শীল সেদিন লাফ দিয়ে ঘর থেকে বেরিয়ে প্রাণে বেঁচে যান। ঘটনার পর থেকে তিনি বাড়ি ছেড়ে চট্টগ্রাম শহরে থাকছেন। খালি পড়ে আছে ভিটেটি। সুবিচার পাওয়ার আশা একপ্রকার ছেড়েই দিয়েছেন তিনি। বাংলাদেশের হিন্দু সম্প্রদায় কেমন অত্যাচারের শিকার, এই ঘটনা তারই জ্বলন্ত উদাহরণ।  

We are not big media organisation. Your support is what keeps us moving. Don't hesitate to contribute because, work, for society needs society's support. Jai Hind.